রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন

আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে ‌’আমরা রমণী’র প্রজেক্ট উদ্বোধন

শফিকুল ইসলাম সোহেল ডামুড্যা প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : সোমবার ২২ নভেম্বর, ২০২১
  • ৭৩

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যায় আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে নারী উদ্যোক্তাদের প্লাটফর্ম আমরা রমণীর প্রজেক্ট উদ্বোধন করা হয়েছে। গত শনিবার দুপুরে এটি উদ্বোধন করা হয়।

শরীয়তপুর -৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক এমপির বাসভবনে আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে আমরা রমণী প্রজেক্টের চেয়ারপার্সন মালিয়া হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শরীয়তপুর- ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডকটাইম এর প্রতিষ্ঠাতা ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মনির হোসেন, ডামুড্যা উপজেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফাতেমা নাহিয়ান, ডামুড্যা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা খানম লাভলী, ডামুড্যা প্রেসক্লাবেরb সভাপতি শফিকুল ইসলাম সোহেল সহ প্রমূখ।

শরীয়তপুর -৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক এমপি বলেন, আমরা রমনী নতুন একটি প্রজেক্ট, যা নারী উদ্যোক্তা তৈরি করা, আমরা রমনী প্রজেক্ট নারীদের বিভিন্ন বিষয়ে যেমন উদ্যোক্তা তৈরিতে বিভিন্ন ট্রেনিং দিয়ে থাকে,এই ট্রেনিং নিয়ে আপনারা যদি নিজ এলাকায় কাজ করেন, তাহলে আপনি এবং আপনার পরিবার টা সচল হয়ে যাবে।আমি মনে করি আপনাদের আরও এগিয়ে আসতে হবে।আমি আমার নিজ বাড়িতে আপনাদের জন্য আমরা রমনী প্রজেক্টের ভবন করে দিচ্ছি যাতে আপনারা এখান থেকে নিয়ে আর অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারেন।

আমরা রমনীর চেয়ারপাসর্ন মালিয়া হোসেন বলেন, আমরা রমণী মহিলা উদ্যোক্তাদের জন্যে একটি সংগঠন হবে। সংস্থাটি তাদের অনুসন্ধান করে, সূচীকরণ করে, প্রচার করতে এবং তাদেরকে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর সাথে সংযুক্ত করবে। আমরা রমণী প্লাটফর্মের মাধ্যমে নারীদের মধ্যে একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের সমাজের নারীদের অবস্থা ধীরে ধীরে পরিবর্তন হচ্ছে। নারীরা এখন বৃহত্তর পরিসরে সাফল্যমণ্ডিত। আর এই সাফল্যমণ্ডিত হওয়ার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে নারী উদ্যোক্তার সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়া। কিন্তু পশ্চিমা দেশগুলো থেকে আমাদের দেশে নারী উদ্যোক্তাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে অনেক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয়। যেহেতু নারীকে দুর্বল ভাবা হয়, সেজন্য পরিবার বা সমাজ থেকে নেমে আসে নানা রকম বাধা। একটি জরিপে দেখা গেছে, দেশের মোট শিল্প উদ্যোক্তার মধ্যে ১০ শতাংশের বেশি নারী। তবে ক্ষুদ্র শিল্পে নারীর সংখ্যা বেশি থাকলেও অন্যান্য শিল্পে নারীর সংখ্যা কম। তাই আমরা রমণী প্লাটফর্মের মাধ্যমে দেশের সফল নারী উদ্যোক্তা গঠন করা হবে।

তিনি আরো বলেন, নারী মুক্তি তখনই সম্ভব, যখন নারীরা সমাজের প্রতিটা কর্মকাণ্ডে সমান গুরুত্ব নিয়ে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে। আর নারীর মুক্তির ও উন্নয়নের জন্য দরকার নারীর মুক্তিকে বাধা দেয় এমন সমস্যার সমাধান। তাই সেই সমস্ত সমস্যার সমাধান করে নারীকে, অনুপ্রাণিত করা, নারীকে সচল করা, নারীর ক্ষমতায়নকে আরও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আমাদের এই “আমরা রমণী” -এর জম্ম। আজ আমাদের “আমরা রমণী” এর নতুন একটি প্রজেক্টের শুভ উদ্বোধন করছি। প্রজেক্টটির নাম “Door to Door Mobile Entrepreneurs”, আমরা ১০ জন মহিলাকে ইতিমধ্যে এই প্রজেক্টের জন্য নির্বাচন করেছি। যারা প্রতিদিনকার জীবনের অতি জরুরি কিছু পণ্য ও সেবা নিয়ে আপনাদের এক ঘর থেকে আরেক ঘরে পণ্য বিক্রি ও সেবা প্রদান করে থাকবে। তারা প্রত্যেকে এখন একেক জন উদ্যেক্তা।

তিনি জানান, আমাদের সেবার মধ্যে রয়েছে, স্যানিটারি ন্যাপকিন, প্রেগন্যান্সি টেস্ট কিট, মোবাইল ব্যালেন্স রিচার্জ, ব্লাড প্রেশার ও ডায়বেটিস বা সুগার মাপা। এছাড়াও রয়েছে সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং ও খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা সার্ভিস ডকটাইম, যারা কাজ করে টেলি-হেলথ নিয়ে, অনলাইনে ভিডিও কলের মাধ্যমে ডাক্তাররা রোগীদের দেখেন, রোগীকে দেখার পর প্রেসক্রিপশন দেন, টেস্ট দেন। যাদের খুবই জরুরি সময়ে ডাক্তার দেখানোর কিংবা যাদের সামর্থ্য নেই ১,০০০ বা ১,৫০০ টাকা ভিজিট দিয়ে ভালো ডাক্তার দেখানো, তাদের জন্য আমরা ডকটাইমের মাধ্যমে একটা নিদিষ্ট ফি নিয়ে অনলাইনে ডাক্তার দেখিয়ে দিব। যে সমস্ত ডাক্তার ডকটাইমে আছে সবাই কিন্তু ভেরিফাইড ও নামকরা সব হাসপাতালের ডাক্তার।

তিনি আরও বলেন, এখানে কেউই কারো প্রতিযোগী নয়, আমরা সবাই সবার সহযোগী। আমরা আজ ১০ জন নারী উদ্যেক্তাকে নিয়ে এই প্রজেক্ট শুরু করেছি।কাল এই ১০ জন থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আরও ১০ জন এ প্রজেক্ট এর সদস্য হবে। আমরা রমণী একটা গাছের মত। আর আমরা সব নারীরা এই গাছের ছায়াতলে থেকে একজন আরেকজনকে এগিয়ে নিয়ে যাবো, এটাই আমরা রমণীর এই প্রজেক্টের সার্থকতা হবে।

অনুষ্ঠানে ১০ জন নারী উদ্যোক্তাকে প্রয়োজনীয় সব উপকরণ বিতরণ করেন আমরা রমণী এর প্রজেক্টের পক্ষ থেকে।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..