রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:৪৩ অপরাহ্ন

ইজারা বন্ধ : কুষ্টিয়া বালুমহালের দুই’শ কোটি টাকার ভাগ কাদের পেটে

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০

আদালতে মামলা, তাই বালিমহল ইজারা দেয়া নিষেধ কুষ্টিয়া জেলার ২১টি বালিমহাল। কিন্তু বালি উত্তোলন থেমে নেই। প্রতিদিন অন্তত: ৫ লক্ষ ঘনফিট মোটা বালি উত্তোলিত হচ্ছে। যার আনুমানিক মূল্য নূন্যতম (প্রতি ঘনফুট ৩০-৪০টাকা হিসেবে) দেড় থেকে দুই কোটি টাকা। এভাবেই চলছে প্রায় ১০ বছর। সাধারণ হিসেবে এই বালি খাত থেকে গত দশ বছরে লুট হয়েছে প্রায় ২শ কোটি টাকা। এই টাকা কাদের পকেটে গেছে ? এ প্রশ্ন এখন আর জোড়ালো নয়। কারন মানুষও প্রায় অভ্যস্ত হয়ে গেছে। তবে অভিযোগ উঠেছে, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও কর্তৃপক্ষের অবহেলা, ব্যর্থতা অথবা যোগসাজসে সৃষ্ট এই আইনগত জটিলতা বিদ্যমান থাকায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। রাজস্ব হারানোর তথ্যটি জেলার রাজস্ব বিভাগের।
মিরপুর উপজেলার রানাখড়িয়া বালিঘাটের ব্যবসায়ী ওহিদুল কবিরাজ বলেন, পশ্চিম বাহিরচর ও রানাখড়িয়া-তালবাড়িয়া বালি ঘাটে পদ্মা নদী থেকে প্রতিদিন নির্মাণ কাজের সর্বোচ্চ মান সম্মত প্রায় ৫লক্ষ ঘনফুট বালি উত্তোলন ও সরবরাহ হচ্ছে দেশের দক্ষিণ-পরিশ্চমাঞ্চলের ২০ জেলায় যার আর্থিক মূল্য প্রায় দেড় কোটি টাকা। ভেড়ামারা বারোমাইল বালি ঘাটের ব্যবসায়ী মাহবুল হক বলছেন, ঘাট মালিকদের মাধ্যমে আদায়কৃত সরকারী টোল দিয়েই ব্যবসা করি। আদায়কৃত এই টাকা আদৌ সরকারের ঘরে যাচ্ছে কিনা সেটা বলতে পারব না। ভলগেট নৌকা মালিক সাহাবুল ইসলামের অভিযোগ, সরকারী ভাবে বালিমহাল ইজারা কার্যক্রম বন্ধ থাকর সুযোগ নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালীরা অবৈধ ভাবে জোর পূর্বক প্রতিদিন কেবলমাত্র বাহিরচর বারোমাইল ও ঘোড়ামারা তালবাড়িয়া বালিঘাটের অন্তত: ৫শ নৌকা থেকে গড়ে ৫০লক্ষ টাকা বিনা রশিদে চাঁদা আদায় করছেন ঘাট মালিকারা। এতে চরম নিষ্পেষনের শিকার হচ্ছি আমরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x