শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১১:১১ পূর্বাহ্ন

ইসলামী আন্দোলনের প্রতিনিধিদল পীরগঞ্জের মাঝিপাড়ায়

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমীর মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) এর পক্ষ থেকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর যুগ্ম মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে আজ ১৯ অক্টোবর সকাল ১১টায়, একটি প্রতিনিধিদল রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার মাঝিপাড়ায় অগ্নিসংযোগে ক্ষতিগ্রস্তদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে ক্ষতিগ্রস্থ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে সহায়তা প্রদান করেছেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রংপুর জেলা সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ খায়রুল ইসলাম, সেক্রেটারী মাহমুদুর রহমান রিপন, মহানগর সেক্রেটারী মুহাম্মাদ আমিরুজ্জামান পিয়াল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রংপুর জেলা শাখার উপদেষ্টা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব এটিএম গোলাম মোস্তফা বাবু, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন রংপুর জেলা শাখার সভাপতি মুহাম্মাদ আব্দুল ফাত্তাহ।

ক্ষতিগ্রস্ত সংখ্যালঘুদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও তাদের সাথে মতবিনিময় শেষে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শিশু খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।

এসময় ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম বলেন, ইসলাম শান্তি ও কল্যাণের ধর্ম, মানবতার ধর্ম। কাজেই হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান সকল ধর্মের মানুষেরই এদেশে শান্তিতে বসবাস করার অধিকার রয়েছে। যারা নিরপরাধ মানুষের প্রতি জুলুম করে ধর্মের সঙ্গে তাদের কোন সম্পর্ক নেই। তিনি বলেন, সকল ধর্মের নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্ব সরকারের। অতএব, সরকারকে ঘটনার পেছনের হোতাদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে হবে।

এদিকে আজ মঙ্গলবার বিকেলে পুরানা পল্টনস্থ কার্যালয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং চলমান সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাড়ীঘরে হামলার প্রেক্ষিতে অনুষ্ঠিত পর্যালোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা ইউনুছ আহমাদ। সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ্ব খন্দকার গোলাম মাওলা, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, সহকারি মহাসচিব মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম আতিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বরকত উল্লাহ লতিফ, মাওলানা খলিলুর রহমান, জিএম রুহুল আমীন, মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী প্রমূখ।
সভায় বলা হয়, ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্ট করার মাধ্যমে দেশকে অস্থিতিশীল করার সকল অপচেষ্টা রুখে দিতে হবে। দেশে ধর্মীয় বিভেদ উস্কে দিতে চায়, সব ধর্মের মানুষ ঐক্যবদ্ধভাবে তা মোকাবেলা করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x