সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ায় সিজানকে অপহরণের পর এবার ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার পাঁয়তারা চলছে

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কুষ্টিয়া দৌলতপুর থানার বাহিরমাদি গ্রামের সিজানকে বেশ কয়েক দিন আগে অপহরণ করার পর এবার নেশাখোর মোবাইল চোরের অপবাদ দিয়ে ঘটনার মোড় ঘোরানোর পাঁয়তারা চলছে। এই ব্যাপারে সিজানের বাবার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা বলছে তারা সত্যটা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য এটা একটা গভীর সড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুনা।

এর আগে আমাকেও মারধর করেছে তার গুন্ডা বাহিনী। আর এই ব্যাপারে আমি দৌলতপুর থানায় মামলা করতে গেলে তারা আমার মামলা নেয় নাই। শুধু একটা অভিযোগ নেয়, আর এর তদন্ত করেন এস আই হেলাল স্যার। তিনি সঠিক তদন্ত না করে বরং উল্টা তার পক্ষ হয়ে আমাকে উল্টা পাল্টা বুঝান। তাই আমি বাধ্য হয়ে কোর্টে মামলা করি।

এখন আসামিরা আমার পরিবারের সদস্যদের উপর তার গুন্ডা বাহিনী দিয়ে হুমকি ধামকি দিচ্ছে। আসামিরা ১.মোঃ শামিম হোসেন পিতা -মোঃ শিবুল হাজী ২.মোঃসবুজ পিতা-খালেক উভয় সাং -বাহিরমাদী ৩.মোঃ রাসেল পিতা-মোঃ ঝন্টু মালিথা সাং কৈপাল ৪.শিবুল হাজী পিতা-মৃত খোদা বক্স মন্ডল। সর্ব থানা -দৌলতপুর, জেলা কুষ্টিয়া। আমরা প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু ও সঠিক বিচার কামনা করছি।

এই ব্যাপারে আসামিপক্ষের শিবুল হাজীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সিজান একজন নেশাখোর চোর আমার মোবাইল চুরি করেছে তাই পোলাপান সজনের ডাঁটা দিয়ে একটু মারধর করছে। তেমন কিছু না এটা। আমি নেতাদের সাথে কথা বলেছি,তারা সব জানে তারা সব ঠিক করে দিবে।

সজিনার ডাঁটা দিয়ে মারলে কি ৩/৪দিন হাসপাতালে থাকতে হয়? ২দিন ধরে সিজান কোথায় ছিল? সিজান চোর থানায় দিতেন আপনারা মারলেন কেন? কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর আমরা পাইনি।এলাকা বাসির কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন সিজানের উপর অমানবিক নিষ্ঠুর নির্যাতন হয়েছে ঘটনা সত্য। তিনি বিভিন্ন নেতাদের নাম ভাংগিয়ে নিজেকে প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসেবে দাবি করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়: