শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৩৮ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আলামপুর ইউপি’র চেয়ারম্যান হিসেবে মশিউরের বিকল্প নেই

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১১ নভেম্বর, ২০২০

বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে প্রাথমিক, মাধ্যমিক, কলেজ পেরিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করেছেন এই উদীয়মান ছাত্রলীগ নেতা আব্দুর রহিম ওরফে মশিউর। তিনি দহকুলা গ্রামের প্রভাবশালী ও ধন্যাঢ্য পরিবার বাগানপাড়ার মৃত মনজের আলী মন্ডলের নাতি ও মহসিন আলী মন্ডলের ছেলে। উক্ত গ্রামের মধ্যে মশিউর এর পরিবার ধনাঢ্য ও প্রভাবশালী ছিল এবং এখনো আছে।
এই আব্দুর রহিম ওরফে মশিউর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করা অবস্থায় তার নিজ এলাকার শত শত শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে সাহায্য সহযোগিতা করে এসেছেন বিভিন্নভাবে। বর্তমানে তিনি ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে আলামপুর ও দহকুলা বাজারে বড় ধরনের ব্যবসা করছেন। দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে তিনি আলামপুর ইউপির জনগণের পাশে দাড়িয়ে সেবা করতে চান। আগামী ইউপি নির্বাচনে তিনি আলামপুর ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে জয়লাভ করে ইউপি বাসির সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চান বলে তিনি প্রতিবেদককে জানান।
তিনি এটাও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশ ডিজিটালের পথে এগিয়ে চলেছে, বর্তমানে এই ডিজিটাল যুগে একজন যুগোপযোগী সৎ ও যোগ্য চেয়ারম্যান অত্র ইউনিয়ন প্রয়োজন। যারা ডিজিটাল যুগের সমস্ত কিছু বোঝে এবং জানে সে ক্ষেত্রে আমি একজন সর্বোচ্চ ডিগ্রিধারী ছাত্রলীগ নেতা ও দহকুলা গ্রামের ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান হয়ে ডিজিটালাইজেশনের যুগে অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হয়ে আলামপুর ইউনিয়নবাসীর হাল ধরতে চাই। তিনি এটাও বলেন ইতিপূর্বে যেসকল চেয়ারম্যান ছিলেন এবং আগামীতে যারা প্রতিদ্বন্দিতা করবেন তাদের মধ্যে অনেকেই বিতর্কিত অবস্থানে আছেন, সে ক্ষেত্রে নতুন ও শিক্ষিত নেতাকর্মীদের আগমন সৃষ্টি করতে হবে প্রতিটি ইউনিয়নে। বর্তমান ডিজিটালাইজেশনের যুগে বিতর্কিত এবং অশিক্ষিত ব্যক্তিদের দাঁরা একটি ইউনিয়ন পরিচালনা করা সম্ভব হবে না। যে কারণে আমি আলামপুর ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচিত হওয়ার জন্য ইউনিয়ন বাসীর কাছে দোয়া ও সমর্থন প্রার্থনা করছি।
একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এটাও বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে আলামপুর ইউনিয়ন তেমনটি উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি, আমি নির্বাচিত হলে উক্ত ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসাবে রূপান্তরিত করব ইনশাল্লাহ আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। আমার মূল লক্ষ্য হবে ইউপির সার্বিক উন্নয়ন ও জনসেবা করা। জনপ্রতিনিধিরা জনগণের সেবক। জনগণের সেবা করার জন্য আমি নিজেকে বিকিয়ে দিতে চাই ইউপি বাসীর মাঝে। আমি সামান্য একজন ছাত্রলীগ নেতা হয়ে ইতিমধ্যে এলাকাতে একাধিক সমাজসেবামূলক কাজ কর্ম করে এসেছি যা সকলে জানেন। জনগণের চাহিদা পূরণ করতে পারাই জনপ্রতিনিধির মূল কাজ। আপনারা আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করলে পরিকল্পনার মাধ্যমে ইউনিয়ন বাসীর জন্য কাজ করে যাব।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বুকে ধারণ করে জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন আব্দুর রহিম ওরফে মশিউর। জনসেবার মন মানসিকতা আছে বলেই পুরো ইউনিয়ন জুড়ে উন্নয়ন মূলক কাজ করব। আমি কি করেছি তা জনগনই বলবে। আমি উন্নয়নে বিশ্বাসী। আমি জনপ্রতিনিধি হয়ে জনগণের জবাবদিহিতায় আওতায় আসতে চাই। তাহলে আরও উন্নয়ন হবে আমার এই ইউনিয়নে। আপনারা আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করে আপনাদের সেবা করার সুযোগ করে দিবেন। এ জন্য আমি আমার প্রাণ প্রিয় ইউনিয়ন বাসীকে অন্তরের অন্তস্থল থেকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি তারা যেন আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেন।
তবে মশিউর রহমানের বিষয়ে আলমপুর ইউনিয়নের একাধিক স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে আলাপ করলে তারা বলেন, অত্র ইউনিয়ন আমরা নতুন মুখ দেখতে চাই। তবে এ ইউনিয়নে মশিউর রহমানের বিকল্প অন্য কাউকে আমরা আর খুঁজে পাচ্ছিনা সুতরাং তার বিকল্প অন্য কেউ এই ইউনিয়নে আর নেই।
তিনি প্রতিবেদককে এটাও বলেন, আমাদের দেশসহ পুরো বিশ্ব আজ করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর সংক্রমণের কারনে গভীর সংকটের সম্মুখীন, আশা করি এই সংকট অচিরেই দূর হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার শুরু থেকেই খুবই আন্তরিক এবং সতর্ক অবস্থায় আছে। আপনাদের সবাইকে সরকারের নির্দেশনা মেনে চলার জন্য অনুরোধ করছি, সরকারের পাশাপাশি জনগণকে এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। কোন প্রকার গুজবে কান না দিয়ে সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন বিপদে-আপদে আমি আপনাদের পাশে থাকব।
যে কোন প্রয়োজনে আমাকে আপনাদের পাশে পাবেন। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে নয়, এই এলাকার ছেলে ও আপনাদের সেবক হিসেবে কাজ করে যেতে চাই। আতংকিত নয়, সচেতন থাকুন, ঘুরাঘুরি না করে নিজের ঘরে থাকুন। জনসমাগম এড়িয়ে চলুন, মুখে মাক্স বাধ্যতামূলক করুন, পরিবার ও সাধারন মানুষদের সুরক্ষিত রাখুন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x