রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন

চক্রের ইশারায় বাড়ছে কমছে শেয়ারের দাম, দেখার কেউ নেই!

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর, ২০২১
  • ৫৩

শেয়ারবাজার নিয়ে আলোচনা সমালোচনার যেনো আর শেষ হয় না। আজ শেয়ারের দাম উঠছে তো কাল একই কোম্পানির শেয়ার আবার পড়ে যাচ্ছে। শেয়ারবাজারের এমন আচরণকে এই বিষয়ের বিশেষজ্ঞরা বলছেন অস্বাভাবিক। এমন অবস্থা হয়েছে যে এক টাকার শেয়ার দুই টাকা কিংবা তিন টাকা নয়, বেড়েছে ১৪ টাকারও বেশি। অর্থাৎ ১০০ টাকার শেয়ারের দাম বেড়ে হয়েছে ১৪০০ টাকা। তা-ও আবার তিন থেকে চার মাসের ব্যবধানে। যা স্বাভাবিকভাবে কোনো ব্যবসাতেই সম্ভব নয়।

পুঁজিবাজারে একের পর এক কোম্পানির শেয়ারে কারসাজি হচ্ছে। যেসব কোম্পানির শেয়ারে কারসাজি হচ্ছে সেসব প্রতিষ্ঠানের বক্তব্য হচ্ছে, শেয়ারের দাম বাড়ার তো কোনো কারণ নেই, নেই কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্যও। তারপরও বাড়ছে শেয়ারের দাম।

পুঁজিবাজার-সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্রেফ কারসাজির মাধ্যমে দাম বাড়ানো হচ্ছে। তারা বলছেন, সবপক্ষই মিলেমিশে টাকা লুটপাটের মহোৎসবে মেতেছে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তা, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট, আইনজীবী, অডিটর, প্রশাসন ক্যাডার— কেউ যেন বাদ যাচ্ছেন না। বিষয়টি দেখভালে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব থাকলেও তারাও দায় নিচ্ছেন না!

স্রেফ কারসাজির মাধ্যমে দাম বাড়ানো হচ্ছে। সবপক্ষই মিলেমিশে টাকা লুটপাটের মহোৎসবে মেতেছে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তা, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট, আইনজীবী, অডিটর, প্রশাসন ক্যাডার— কেউ যেন বাদ যাচ্ছেন না। বিষয়টি দেখভালে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব থাকলেও তারাও দায় নিচ্ছে না
গেল সপ্তাহে (১৭ থেকে ২১ অক্টোবর) দেশের শেয়ারবাজারে বড় ধরনের মন্দাভাব পরিলক্ষিত হয়। ওই সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বাজার মূলধন হারিয়েছে ১০ হাজার কোটি টাকার ওপরে। শুধু তা-ই নয়, কমেছে সবকটির মূল্যসূচক। এর পেছনেও কারসাজির গন্ধ পাচ্ছেন অনেকে।

বাজার-সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত বছর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। দায়িত্ব নেওয়ার পর করোনার কারণে বন্ধ থাকা পুঁজিবাজারের লেনদেন চালু করেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..