রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:২০ পূর্বাহ্ন

চট্টগ্রাম বন্দর জলসীমা দস্যুতাশূন্য নয় মাস! ব্যবসায়ীরা খুশি

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর, ২০২১
  • ৬২

দেশি-বিদেশি জাহাজ পরিচালনাকারীদের জন্য খুশির খবর হচ্ছে, চট্টগ্রাম বন্দর জলসীমায় পণ্য নিয়ে আসা বাণিজ্যিক জাহাজে চলতি বছরের ৯ মাস পর্যন্ত কোনো দস্যুতা বা পাইরেসির ঘটনা ঘটেনি।

বাণিজ্যিক জাহাজে সংঘটিত সশস্ত্র ডাকাতি, দস্যুতা ও চুরি প্রতিরোধে কর্মরত আন্তর্জাতিক সংগঠন ‘রিক্যাপ’ জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসের এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে গত সপ্তাহে। প্রতিবেদনে ভারতে দস্যুতার ঘটনা ঘটেছে চারটি, ২০২০ সালে ছিল আটটি। ইন্দোনেশিয়ায় ১০টি, মালয়েশিয়ায় একটি, ফিলিপাইনে ১১টি, ভিয়েতনামে দুটি, দক্ষিণ চীন সাগরেও কোনো দস্যুতার ঘটনা ঘটেনি। তবে সবচেয়ে বেশি ২৭টি ঘটনা ঘটেছে সিঙ্গাপুর-মালাক্কা প্রণালিতে।

রিক্যাপ প্রতিবেদন মতে, ২০২১ সালের ৯ মাসে ৫২টি দস্যুতার ঘটনা ঘটেছে। দস্যুতার ঘটনাকে গুরুত্ব অনুযায়ী চারটি শ্রেণিতে ভাগ করে গণনা করে রিক্যাপ। ৫২টি ঘটনার মধ্যে সাতটি ঘটনা ঘটেছে ক্যাটাগরি-২; ১৬টি ঘটনা ক্যাটাগরি-৩; ২৯টি ঘটনা ক্যাটাগরি-৪। তবে সবচেয়ে বিপজ্জনক ক্যাটাগরি-১-এ কোনো দস্যুতার ঘটনা ঘটেনি। ক্যাটাগরি-১-এ দস্যুতার ক্ষেত্রে সশস্ত্র হামলা হয়, যেখানে জাহাজে থাকা নাবিক হতাহতের ঘটনাও ঘটে।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম শাহজাহান বলছেন, ‘নৌবাহিনী, কোস্ট গার্ড এবং বন্দর কর্তৃপক্ষের সমন্বিত-কার্যকরী কৌশল প্রয়োগের সুফল দস্যুতামুক্ত বন্দর জলসীমা। তবে এখানেই থেমে থাকলে, আত্মতৃপ্তিতে ভুগলে চলবে না। যেহেতু বন্দর জলসীমা এখন অনেক বেড়েছে, তাই বাড়তি জলসীমার নিরাপত্তা নিশ্চিতে নতুন পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেগুলো বাস্তবায়িত হলে আগামী দিনেও এই সুফল ধরে রাখতে পারব।’

উল্লেখ্য, গত বছরের শেষ দিকে চট্টগ্রাম বন্দরের জলসীমা সাড়ে সাত নটিক্যাল মাইল থেকে বেড়ে ৫০ নটিক্যাল মাইলে উন্নীত হয়েছে। বহির্নোঙরে সাগরের সীমানা সীতাকুণ্ড থেকে বেড়ে মহেশখালীর মাতারবাড়ী, কুতুবদিয়া হয়ে সোনাদিয়া পর্যন্ত বেড়েছে। ফলে পুরো জলসীমা চুরি-দস্যুতামুক্ত রাখা ছিল চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..