বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:১৯ অপরাহ্ন

জাবিতে পরীক্ষার্থীদের জন্য ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির তথ্য সহায়তা কেন্দ্র

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ‘ডি’ ইউনিটের অধীনে জীববিজ্ঞান অনুষদের ভর্তি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে চলতি বছরের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার (০৯ নভেম্বর) সকাল ৯ টায় প্রথম শিফটের পরীক্ষার মাধ্যমে শুরু হয়েছে ভর্তিযুদ্ধ। এই ভর্তিযুদ্ধ শেষ হবে আগামী ২১ নভেম্বর গানিতিক ও পদার্থ বিজ্ঞান ইউনিট পরীক্ষার মাধ্যমে। শিক্ষার্থীদের সকল ধরনের সহযোগিতা ও দিক-নির্দেশনা দিচ্ছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত দ্বীপ জেলা ভোলার শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (০৯ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইনগেটের অদূরেই অবস্থিত ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির টেন্টে গিয়ে দেখা যায় সেখানে অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা ভোলা ও বিভিন্ন জেলা থেকে আসা শিক্ষার্থীদেরকে তাদের পরীক্ষার কেন্দ্র ও বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করছে।

এ বিষয়ে পরীক্ষা দিতে ভোলার লালমোহন উপজেলা থেকে আসা এক শিক্ষার্থীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এর আগে ঢাকায় আসিনি, এবার প্রথম ঢাকা এসেছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে গিয়ে আমার কেন্দ্র খুঁজে পেতে অনেক কষ্ট হয়েছে কিন্তু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে আমি এখানে বিভিন্ন জেলার ব্যানার টানানো দেখে আমাদের ভোলা জেলার স্টল খুঁজতে ছিলাম তখন দেখি গেটের প্রথম দিকেই আমাদের জেলা সমিতির স্টল। এখানে আসার পর ভাই ও আপুরা আমাকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছে।

সেখানে উপস্থিত অন্য এক শিক্ষার্থী বলেন, আমি সময়ের অভাবে আমার জেলা সমিতি খুঁজে পাইনি। এসময় গেটের কাছেই অবস্থিত ভোলা জেলা ছাত্র কল্যাণ সমিতির ভাই আপুদের কাছে আমার কেন্দ্রের কথা জিজ্ঞাসা করলে তারা আমাকে কেন্দ্র দেখিয়ে দেন। এবং আমার ব্যাগ ও মোবাইল রেখে আমার সহযোগিতা করেন।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ইতিহাস বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী মামুনুর রশিদ (৪৭ ব্যাচ) বলেন, ভর্তি পরীক্ষার সময়টাতে আমাদের স্টুডেন্টদের জন্য অন্যতম আনন্দের বিষয় হচ্ছে টেন্ট এসে বসা। কারণ এখানে নিজের জেলা থেকে পরিচিত-অপরিচিত অনেক ছোট ভাই-বোন পরীক্ষা দিতে আসে। যারা আমাদেরকে একটা নির্দিষ্ট জায়গায় নির্দিষ্ট একটা পরিচয়ে খুঁজে পেয়ে অনেকটা প্রশান্তি পায়। এবং তাদেরকে সাহায্য করতে পেরে আমাদের নিজেদের মধ্যেও অসম্ভব ভালো লাগা কাজ করে।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অর্থনীতি বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী আশিকুন নবী (৪৭ ব্যাচ) বলেন, ভোলার পরিচিত মানুষদের সাহায্যের পাশাপাশি অপরিচিত মানুষদের সাথেও আলাপ হচ্ছে। এছাড়া ভর্তি পরীক্ষা পরবর্তী নানা কাজে তাদের পাশে থাকা, ফলাফল জানানো সর্বপরি মানুষের হাসিমুখ দেখতে ও বিপদে পাশে থাকতে পেরে আমি আনন্দিত।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত গনিত বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মুহাম্মাদ রাকিব (৪৯ ব্যাচ) বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত শিক্ষার্থীদের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এই বিশাল ক্যাম্পাসে পরিক্ষা কেন্দ্র খোজা, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌছানো, সাময়িক বিশ্রামসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে সহযোগিতার জন্য সবসময় এগিয়ে আসে বিভিন্ন জেলা ছাত্র কল্যাণ সমিতি সমূহ।

বিশেষ করে এবারএডমিশন ক্যান্ডিডেটদের বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে থাকার জন্য অনুমতি দেওয়া হয়নি। এমতাবস্থায় দেশের দূরদূরান্ত থেকে আগত ক্যান্ডিডেটদের সহযোগিতা বিশেষভাবে প্রয়োজন।

গত সেশনে এডমিশন টাইমে আমি যখন ক্যাম্পাসে আসি তখন হাতে সময় ছিলো মাত্র ৩০ মিনিট। প্রচন্ড ক্লান্তিকর পরিবেশ, বাস জার্নি করে ক্যাম্পাসে নেমেই ভোলা জেলা ছাত্র কল্যান সমিতির দেখা পেলাম। আমার পরিক্ষা কেন্দ্র ছিলো পুরাতন কলা ভবন (ক্যাম্পাসের আরেক প্রান্তে)। এই স্বল্প সময়ের মধ্যে ১৫ মিনিট আগেই জেলা সমিতির ভাইদের সহযোগিতায় পরিক্ষা কেন্দ্রে পৌছাতে সক্ষম হই। গতবছরের অভিজ্ঞতা থেকেই বুঝতে পারলাম একজন ক্যান্ডিডেটের জন্য জেলা ছাত্র কল্যাণ সমিতিগুলো প্রয়োজন, যারা স্টুডেন্টদের স্বেচ্ছায় সহযোগিতা করে। এবছর আমিও আমার ভোলা জেলা ছাত্র কল্যান সমিতির সাথে ক্যান্ডিডেটদের সহযোগিতায় আছি। এরমধ্যে এতটা আনন্দ আছে উপস্থিত না থাকলে বুঝতেই পারতাম না। একটা বড় শিক্ষা এখান থেকেই পেলাম, “সহযোগিতার মধ্যেই সুখ”।

উল্লেখ্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় প্রতিবছরের ন্যায় এবারো ভোলা থেকে আগত নবীন পরীক্ষার্থীদের আবাসন সমস্যা সহ যেকোন সহযোগিতায় ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতি নবীনদের পাশে থাকবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেইটের পাশেই অবস্থিত ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির অস্থায়ী টেন্ট/কার্যালয়।

প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন।
মিসির হাছনাইন 01601018046
আশিকুন নবী 01747731855
মামুনুর রশিদ 01834446200

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x