শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন

ঢাবি ছাত্রী অনন্যার অনন্য উদ্যোগ

খাদিজাতুল কুবরা, খুবি প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১২০ বার পঠিত

করোনা মহামারীর সময়ে পুরো পৃথিবী যখন থমকে গেছে ঠিক তখন মহামারির ফলে জীবন যাত্রা থেমে যাওয়া কিছু অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান ছাত্র লীগ কর্মী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিস ডিসিপ্লিনের ছাত্রী ফারজানা ইয়াসমিন অন্যন্যা।

আম্ফান এর পর থেকে সুন্দরবন সংলগ্ন কয়রা এলাকায় টানা ৫ মাস বন্যায় থেমে আছে জীবন যাত্রা। পানির অতল গহ্বরে বিলীন হয়ে গেছে তাদের জীবিকার মাধ্যম আবাদি জমি, মাছ চাষের পুকুর ও ঘরবাড়ি। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের পানি বাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ ও গবাদি পশু। মোট ১৫০০ মত পরিবার এই সমস্যায় ভুগছে বলে জানা যায়। জীবন যাপন যেনো স্তব্ধ হয়ে আছে তাদের। বেশ ভেতরকার গ্রাম হওয়ায় এক প্রকার অবহেলিত অজ্ঞাত হয়ে ছিলো উক্ত গ্রামবাসীরা। এমত অবস্থায় কয়রার ছেলে ঢাবি ছাত্র ইমরান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফারজানা ইয়াসমিন অন্যন্যার সাথে যোগাযোগ করেন এবং তাদের এই দুর্দশার চিত্র তুলে ধরেন। ঘটনাটি সর্ম্পকে অবগত হওয়ার পর এই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার তোয়াক্কা না করে গত ১৭ ই অক্টোবর সকাল ৬ টায় ১১০ টি পরিবারের ১ সপ্তাহের খাবার ও বিশুদ্ধ পানি নিয়ে খুলনা বিভাগের সুন্দরবন উপকূলবর্তী কয়রা এলাকায় পৌঁছান অন্যন্যা। প্রতিটি পরিবারের জন্য ৮ কেজি চাউল, ২ কেজি মশুরির ডাল,২ কেজি আলু ও এক লিটার সয়াবিন তেল নৌকায় করে উক্ত ১১০ টি পরিবারের কাছে পৌঁছে দেন তিনি। এ সর্ম্পকে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর একজন নিবেদিত প্রান কর্মী হিসেবে আমি উক্ত এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর মাঝে মানবিক সহায়তার মাধ্যমে তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি। আশা করি দেশের যেকোনো দুর্যোগ আমরা সম্মিলিতভাবে মোকাবিলা করব। শুধু করোনা নয়, যেকোনো দুর্যোগে মানুষের পাশে থাকার শপথ নিয়ে ছিলাম এবং থাকব৷ “ইনশাআল্লাহ”!

এর আগেও বিভিন্ন ভাবে মানুষের পাশে থেকেছেন অন্যন্যা। তার এই গঠনমূলক উদ্যোগ এর ফলে হাজার হাজার আর্ত অসহায় মানুষ জঠর জ্বালা থেকে মুক্তি পাচ্ছে। এধরনের মানব সেবামূলক কাজে তিনি আরো মানুষকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..