শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন

দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে ৬ খাবার

আব্বাস আলী
  • আপডেট টাইম : ২৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৮৮ বার পঠিত

বতর্মানে প্রায় অনেকেই দৃষ্টিহীনতাসহ দুর্বল দৃষ্টিশক্তির সমস্যায় ভুগছেন তা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। পুষ্টিহীনতাকে এর মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। কর্মব্যস্ততা, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনসহ আরও নানা কারণে শরীরে পুষ্টির অভাব দেখা দিচ্ছে। একদিকে যেমন শরীরের কার্য ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে, তেমনি চোখের দৃষ্টি শক্তি কমে যাচ্ছে।

এমন কিছু খাদ্য দ্রব্য নিয়ে আলোচনা করব যার মাধ্যমে দৃষ্টি শক্তি এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

১) সবুজ শাক-সবজিঃ বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই শাক-সবজি খেতে তেমন একটা পছন্দ করেন না। কিন্তু শাক না খেলে চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটা সম্ভব নয়। আর চোখে যদি আলো না থাকে, তাহলে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। অনেক সময় অন্ধত্বও দেখা দিতে পারে। এ সমস্যা সমাধানে অনেকেই প্রথমে চশমা ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু চশমা ব্যবহার করাটাই মূল সমাধান নয়।কেননা বয়স যত বাড়তে থাকবে চোখের দৃষ্টি শক্তি তত কমতে থাকবে। তাই তো প্রতিদিন নিয়ম করে সবুজ শাক সবজি খেতে পারেন। কারণ এই ধরনের শাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং জিয়াক্সেনথিন নামে বেশ কিছু উপকারি উপাদান থাকে। এ উপাদানগুলো ছানি ছাড়াও একাধিক চোখের রোগ থেকে আপনাকে মুক্তি দেবে।

২) চোখ ভাল রাখতে ডিমঃ ডিমে থাকা উপকারী পদার্থ শরীরে লুটেইন, জিয়াক্সেনথিন এবং জিঙ্কের পরিমাণ বাড়তে শুরু করে। এই উপাদানগুলি চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে দারুন ভাবে সাহায্য করে থাকে।

৩) লেবু জাতীয় ফলঃ বাতাবি লেবু, কমলা লেবু এবং পাতি লেবু বেশি করে খাওয়া শুরু করুন। এই সব ফলে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি রয়েছে। এই ভিটামিগুলো ছানি প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে। সেই সঙ্গে দৃষ্টিশক্তিরও উন্নতি ঘটায়।

৪) বাদামঃ বাদামে থাকা উপস্থিত ভিটামিন চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । তাই যদি চশমা ব্যবহার করতে না চান, তাহলে আজ থেকেই রোজের ডায়েটে বাদামকে অন্তর্ভুক্ত করুন।

৫) মাছঃ ছোট মাছ তো বটেই সেই সঙ্গে সামদ্রিক মাছও খেতে হবে। আসলে সামুদ্রিক মাছে উপস্থিত ফ্যাটি অ্যাসিড দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করে।

৬) ভূট্টাঃ ভূট্টাতে প্রচুর পরিমাণ লুটেইন এবং জিয়াক্সেনথিন রয়েছে। এই দুটি উপাদান শরীরের জন্য খুবই উপকারী। তাই ভুট্টা নিয়মিত খেলে চোখের উন্নতি ঘটবে।

লেখক
মোঃ আব্বাস আলী
সহকারী অধ্যাপক (ব্যবস্থাপনা বিভাগ)
জি.টি ডিগ্রী কলেজ, কোটচাঁদপুর, ঝিনাইদহ।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..