শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০১:১২ অপরাহ্ন

দেশে বাড়ছে কমলাজাতীয় ফলের চাষ

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১

গত ১০ বছরে দেশের আম ও পেয়ারার উৎপাদন দ্বিগুণ, পেঁপে আড়াই গুণ, লিচু উৎপাদন ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া কমলার উৎপাদন প্রতিবছর ৫ শতাংশ হারে বাড়ছে। মাল্টার উৎপাদন বাড়ছে ১৫-২০ শতাংশ হারে।

মানুষের শরীরের আবশ্যকীয় বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ও খনিজ পদার্থের উৎস হলো ফল। সামর্থ্যবান ছাড়া একটা সময় বেশির ভাগ মানুষ ফল কিনতেন রোগীর জন্য। সে দিন অনেক আগেই পাল্টেছে।

খাদ্যাভ্যাসে এসেছে পরিবর্তন, ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় ভাত-মাছ-সবজির মতো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ফল। এখন মানুষ চেষ্টা করে প্রতিদিন ফল খাওয়ার।

ফলের চাহিদা বাড়ায় এবং তা সরবরাহ করতে দেশে তৈরি হয়েছে এর একটি বড় বাজার।

সে তালিকায় অবশ্য রং, গন্ধ, স্বাদ ও পুষ্টির বিচারে দেশি ফল অনন্য। চাহিদা বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতিবছর বাড়ছে অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন ফলমূলের বাণিজ্যিক উৎপাদন ও বাজারজাত।

তবে দেশীয় ফল উৎপাদনে প্রত্যাশিত অগ্রগতিতেও বিদেশি ফলের আমদানি হচ্ছে সমান তালে। কারণ দেশে যেসব ফল উৎপাদন হয় তার প্রায় ৬০ ভাগ উৎপাদিত হয় জুন-জুলাই ও আগস্টে। শীতকালে ফল পাওয়ার সুযোগ কম ও অনেক ধরনের ফল দেশে উৎপাদন না হওয়ায় আমদানি করতে হয়।

কোনো কোনো ফল উৎপাদনে বাংলাদেশ শ্রেষ্ঠত্বের তালিকায় থাকলেও চাহিদার জন্য বড় একটা অংশ আমদানি করতে হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংক ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, বছরওয়ারি হিসাবে পার্থক্য থাকলেও প্রতিবছর চাহিদা অনুযায়ী ফল আমদানিতে গড়ে ১০ হাজার কোটি টাকা খরচ হয়। আপেল, কমলা, আঙুর, নাশপাতি, মাল্টা, চেরি, আনার, বরই, আম ছাড়াও বেবি ম্যান্ডারিন, পাম, নেকটারিন, কিউইর, সুইট মিলান, এভোকাডোর মতো কিছু অপরিচিত ফলও আমদানি করা হয়।

পুষ্টিমান বিশেষজ্ঞরা জানান, ফল খেলে রোগ প্রতিরোধ ছাড়াও বদ হজম ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ফলে ক্যানসার প্রতিরোধী উপাদান অ্যান্থোসায়ানিন, লাইকোপেন ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপস্থিত থাকায় এই মরণব্যাধি থেকেও রক্ষা পেতে সাহায্য করে।

ফল বিক্রেতারা জানিয়েছেন, উচ্চবিত্তরা আগে থেকেই তাদের নিয়মিত কেনাকাটার তালিকায় ফলমূল রাখতেন। এখন এ কাতারে যোগ হয়েছে মধ্যবিত্ত শ্রেণিও। আবার বিরতি দিয়ে হলেও ফল খাওয়ায় মনোযোগী হয়েছে নিম্ন আয়ের অনেক মানুষ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x