শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

দৌলতপুর প্রাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামানের জন্ম সনদ বাণিজ্য চলছে

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৪ নভেম্বর, ২০২০

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামানের জন্ম সনদ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দেশে বাল্যবিবাহ বন্দে বর্তমান সরকার কঠোর অবস্থানে থাকা সত্বেও ইউপি চেয়ারম্যানরা সরকারকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অর্থের বিনিময়ে প্রতিনিয়ত জন্ম সনদ বিক্রি করে বাল্যবিবাহকে আরো উৎসাহিত করার প্রমাণ পাওয়া গেছে।
ঠিক তেমনটি জন্ম সনদ বিক্রির করার বিষয়ে প্রমাণ মিলেছে দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামানের বিরুদ্ধে। তিনি অর্থের বিনিময় তার ইউনিয়নের মহিষকুন্ডির মুসলিম নগর গ্রামের সোহরাব হোসেন ও জোসনা খাতুন এর কন্যা সুরাইয়া ইয়াসমিন সুরভীর জন্ম তারিখ ২৭/০২/২০০০ সাল বসিয়ে গত ২৩/০২/২০১৯ তারিখে জন্ম সনদ ইস্যু করেন। উক্ত জন্ম সনদ নিবন্ধন নম্বর দিয়ে কুষ্টিয়া জেলা নির্বাচন অফিসের সার্ভারে তথ্য যাচাই করতে গেলে তার সত্যতা মেলে। মূলত: সুরভির প্রকৃত জন্ম তারিখ ২৭/০২/২০০৭। সুরভি ভেড়ামারা বোর্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৭ তারিখের সনদপত্র ও ভেড়ামারা পৌরসভা কর্তৃক জন্ম সনদ মতে দেখা যায় তার জন্ম তারিখ ২৭/০২/২০০৭। ভেড়ামারা পৌরসভা সুরাইয়া ইয়াসমিন সুরভীকে ২৫/০৫/২০১৫ তারিখে জন্ম সনদ প্রদান করেন।
এই সুরাইয়া ইয়াসমিন সুরভীর জন্ম তারিখ দুই উপজেলাতে রয়েছে দুই রকম। একজন ব্যক্তির জন্ম তারিখ দুইটা ভেড়ামারাতে রয়েছে ২০০৭ সাল দৌলতপুর উপজেলাতে রয়েছে ২০০০ সাল। কুষ্টিয়া জেলা নির্বাচন অফিস থেকে তার জন্ম যাচাই তথ্য উত্তোলন করা হয়েছে তাতে দেখা গেছে দুই উপজেলাতেই তার জন্ম নিবন্ধন রয়েছে। উত্তোলনকৃত সুরভির জন্ম তারিখ ভেড়ামারা পৌরসভা থেকে সুরভীকে ২৫/০৫/২০১৫ তারিখের মে মাসে জন্ম সনদ প্রদান করেছিল ওটাই ছিল তার সঠিক জন্ম তারিখ।
পরবর্তীতে সুরভিকে বিয়ে দেয়ার জন্য দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে অর্থ দিয়ে ২৭/০২/২০০০ জন্ম তারিখ বসিয়ে জন্ম সনদ গ্রহণ করে সুরভিকে দৌলতপুর ইউনিয়নের রামকৃষ্ণপুর ইউপির চরপাড়া গ্রামের আনারুল মন্ডল এর ছেলে মুকুল মন্ডল এর সাথে বিবাহ দেন তাঁর পরিবারবর্গ।
উক্ত নিকাহনামায় ৩ লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিবাহ হয়। তার নিকাহ রেজিস্টার-এ, বালাস নাম্বার ০১/২০২০, পাতা নম্বর ৩২, বিবাহের তারিখ ২৯/০৬/২০২০।
এ বিষয়ে প্রাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামানের মুঠোফোনে কথা হলে তিনি, বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন, মেয়েটির পূর্ণাঙ্গ ডকুমেন্টস জানানোর পর তিনি থমকে গিয়ে বলেন বিষয়টি আমি দেখছি দয়াকরে নিউজ প্রকাশ করবেন না। তিনি এটাও বলেন বিষয়টা আমি খতিয়ে দেখছি।
বিস্তারিত দেখার জন্য আগামী সংখ্যায় চোখ রাখুন,,,,,

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়: