শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০২:১০ অপরাহ্ন

ধানমন্ডিতে গ্যাসলাইনে লিকেজ: তিতাসের ‘অসহযোগিতাকে’ দুষছে ডিএসসিসি

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭ বার পঠিত

ধানমন্ডি-২৭ নম্বরে রাপা প্লাজার পাশে গ্যাস লাইন লিকেজের ঘটনায় তিতাস গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের দায়িত্বজ্ঞানহীনতাকে দুষছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। তাদের ভাষ্যমতে, তিতাস গ্যাসের ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ ও অসহযোগিতার’ ফলে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

আজ শনিবার ডিএসসিসির মেয়র কার্যালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এরআগে, ডিএসসিসির আওতাধীন ধানমন্ডি ২৭ নম্বর রোডের রাপা প্লাজার সামনের অংশে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্তৃক চলমান উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের সময় শুক্রবার ভোর সাড়ে ৪টায় এই গ্যাস লাইন লিকেজ হয়।

ডিএসসিসি জানায়, সামান্য এক পশলা বৃষ্টিতে ঢাকা শহরের যে কটি এলাকা হাঁটু পানিতে নিমজ্জ্বিত হয়, ধানমন্ডি-২৭ এলাকা তার অন্যতম। বছরের পর বছর জনদুর্ভোগ মোকাবিলাকে যথাযথ গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। ধানমন্ডি-২৭ এলাকার জলাবদ্ধতা দূরীকরতে সংশ্লিষ্ট এলাকার পানির ‘ক্যাপমেন্ট এরিয়া’ দুই ভাগে ভাগ করে জলাবদ্ধতা নিরসনের উদ্যোগের অংশ হিসেবে সাত মসজিদ রোডের বাংলাদেশ আই হসপিটাল অংশ হতে ধানমন্ডি-২৭ এর রাপা প্লাজার সামনের অংশ পর্যন্ত ‘স্টর্ম সুয়ারেজ লাইন’ স্থাপনের কাজ বাস্তবায়নাধীন ছিলে। এই কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন ও পারস্পরিক সহযোগিতার লক্ষ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত একটি পত্র গত ১২ আগস্ট সকল অংশীজনকে পাঠানো হয়, যা তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ গত ২৬ আগস্ট তারিখে রিসিভ করে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয় যে, পাইপ নর্দমা স্থাপনের এলাইনমেন্ট বরাবর তিতাসের স্থাপিত ইউটিলিটি সার্ভিস আছে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ চলাকালীন সময়ে তাদের বিভাগের একজন উপযুক্ত প্রতিনিধি কার্যস্থলে সার্বক্ষণিক উপস্থিত থাকা প্রয়োজন। এমতাবস্থায়, উল্লেখিত সড়কে পাইপ নর্দমা নির্মানাধীণ স্থানে আপনার প্রতিষ্ঠানের ইউটিলিটি সার্ভিস লাইন/পোল সচল রাখার স্বার্থে কাজ চলাকালীন সময়ে একজন উপযুক্ত প্রতিনিধির সার্বক্ষণিক উপস্থিতি একান্তকাম্য। এ ব্যাপারে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ বর্ণিত কাজটি বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য আপনাকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল।

ডিএসসিসির অভিযোগ, অত্যন্ত দুঃখের সাথে আমরা লক্ষ্য করলাম, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৪টা নাগাদ যখন এ গ্যাস লাইনের লিকেজ শুরু হয় তখন সেখানে তিতাস গ্যাসের কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না। এমনটি কাজ শুরু হওয়ার পর হতেও সার্বক্ষণিক কোন প্রতিনিধি তিতাস কর্তৃপক্ষ পাঠাননি।

এছাড়াও, ঘটনা পরবর্তী সময়ে তিতাস গ্যাস হতে দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গ সংশ্লিষ্ট এলাকা পরিদর্শন করে দাবি করেছেন, ওনারা এ ধরনের কোনো চিঠি ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন হতে পাননি বা গ্রহণ করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..