সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন

মন্দিরে হামলার ঘটনায় ধর্মপ্রাণ কোন নাগরিক জড়িত নয়: চরমোনাই পীর

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২১

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম, পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, সাম্প্রদায়িক রঙ লাগিয়ে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিকভাবে চাপে ফেলতে পুজামণ্ডপে কুরআন অবমাননা ও পরবর্তীতে সারাদেশে হামলা- অগ্নিসংযোগ ঘটনার অবতারণা করা হয়েছে। একথা স্পষ্ট যে, এসকল ঘটনায় ধর্মভিত্তিক কোন দল, সংগঠন বা ধর্মপ্রাণ নাগিরক জড়িত নয়। ইসলামী সংগঠনের তৎপরতা বন্ধের লক্ষ্যে এবং দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্যে পরিকল্পিতভাবে সারাদেশে ঘটনাগুলো ঘটানো হয়েছে। আজ বুধবার সকাল ১০টায় পুরানা পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দেশের চলমান সংকট উত্তরণের লক্ষ্যে করণীয় নির্ধারণে ওলামা মাশায়েখ ও রাজনীতিবিদগণের সাথে মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, কুমিল্লায় মন্দিরে পবিত্র কুরআন অবমাননাকে কেন্দ্র করে দেশে নতুন করে সংকটের শুরু। চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে জনতার উপর পুলিশের গুলিতে ৫ জন নিহত, নোয়াখালী, ফেনী ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় হিন্দুদের মন্দিরে আক্রমণ এবং রংপুরের মাঝি পল্লিতে অগ্নিসংযোগকে কেন্দ্র করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারে একটি মহল তৎপর।

এসব হামলা, অগ্নিসংযোগ কোন ইসলামী সংগঠনের কাজ নয় বরং দেশ ও ইসলাম বিরোধী শক্তির গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ। দেশ বিরোধী চক্রান্ত মোকাবেলা ও চলমান সঙ্কট উত্তরণে পীর সাহেব চরমোনাই আগামী ১৭ নভেম্বর ঢাকায় জাতীয় সেমিনার কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, দৈনিক ইনকিলাবের সহকারি সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতী মুহিব্বুল্লাহিল বাকি নদভী, জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদের সভাপতি আল্লামা নূরুল হুদা ফয়েজী, বগুড়া জামিল মাদরাসার মুহাদ্দিস আল্লামা আব্দুল হক আজাদ, প্রখ্যাত গবেষক ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ, সন্ধিপের পীর সাহেবের জামাতা মুফতী ওমর ফারুক সন্ধিপী, বেফাকুল মাদারিসে দ্বীনিয়ার মহাসচিব মুফতী মোহাম্মদ আলী, গবেষক-রাজনীতিক অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, জিরি মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মুহাম্মদ খোবায়েব, সাবেক এমপি প্রফেসর ডা. আক্কাস আলী সরকার, বরিশাল মাহমুদিয়া মাদরাসার মুহতামিম মুফতী ওবায়দুর রহমান মাহবুব, ইসলামী ঐক্যজোটের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শেখ লোকমান হোসাইন, ফরায়েজী আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা আব্দুর রহমান ফরায়েজী, বাংলদেশ খেলাফত মজলিসের প্রতিনিধি মুফতী আব্দুর রহীম সাঈদ।

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, সাম্প্রতিক ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি শ্রেণি বি¶োভ করে সংবিধান, ইসলাম ও মুসলমান বিরোধী শ্লোগান দিয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করছে। ওই শ্রেণিটি সংবিধান থেকে বিসমিল্লাহ ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম তুলে দেয়ার শ্লোগান দিচ্ছে। তাদের শ্লোগানের সঙ্গে ভারতের উগ্রবাদী সংগঠন বিজিপি’র শ্লোগানের মিল রয়েছে, যা দেশবাসীকে উদ্বিগ্ন করে তুলছে। তিনি বলেন, কথিত কিছু বুদ্ধিজীবী দেশে কোন সাম্প্রদায়িক ঘটনা ঘটলেই আলেম ওলামা ও ইসলামী সংগঠনগুলোকে একতরফা দায়ী করে ৭২’এর সংবিধানে ফিরে যাওয়ার নামে এদেশে ইসলামপন্থীদের সকল তৎপরতা বন্ধের দাবি তুলছে। যাতে স্পষ্ট ইসলামপন্থিদেরকে ঘায়েল করতে পরিকিল্পিতভাবে এগুলো করা হচ্ছে ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x