রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন

শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় কর্মক্ষেত্রে পরিবেশ উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাথে আলোচনা সভা

এম এ কাহার বকুল, দিনাজপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শনিবার ৩০ অক্টোবর, ২০২১
  • ৬৬

পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর সহযোগিতায় ইকো-সোশ্যাল ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ইএসডিও) বাস্তবায়িত সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রজেক্ট (এসইপি) এর আওতার গত বৃহস্পতিবার দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে পরিবেশ বান্ধব উপায়ে ফুল গ্রেইন চাল উৎপাদন এবং শ্রমিকদের স্বাস্থ সুরক্ষায় কর্মক্ষেত্রে পরিবেশ উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাথে আলোচনা সভা করা হয়।

এই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এস এম সাইফুল ইসলাম জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, দিনাজপুর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ জুলফিকার আলী শ্রম পরিদর্শক দিনাজপুর ও মোঃ মুসফিকুর রহমান নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা দিনাজপুর । উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন মোঃ আব্দুল আহাদ, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, সদর দিনাজপুর।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কৃষিবিদ মানিক চন্দ্র রায়, উর্দ্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, মৃত্তিকা গবেষণা ইনষ্টিউট, মোঃ রবিউল ইসলাম, জেলা মার্কেটিং কর্মকর্তা, দিনাজপুর, মোঃ রেজাউল ইসলাম, জেলা সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক, মোঃ রফিকুল ইসলাম, পরিবেশ অফিসার, দিনাজপুরসহ হাস্কিং মিল মালিক, ব্রাণ উৎপাদনকারী, চারকোল উৎপাদনকারী, মাছের খাবার ফিড উৎপাদনকারীগণ। ইএসডিও-এসইপি প্রকল্পের প্রকল্পের ব্যবস্থাপক মোঃ আবু বককর সিদ্দিক (আবু), প্রকল্পের এন্টারপ্রাইজ ডেভলপমেন্ট অফিসার এম এ কাহার বকুল ও ডকুমেন্টেশন অফিসার প্রত্যয় চ্যাটার্জি।

সভাপতি জনাব মোঃ আব্দুল আহাদ, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা, দিনাজপুর তিনি সভা উদ্বোধণ করেন এবং প্রকল্পের চলমান কার্যক্রমকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন নিরাপদ ফুল গ্রেইন চালে প্রচুর পরিমাণে আশঁ ও জিং এর পরিমাণ থাকার কারণে হজমে সহযোগিতা করে এবং শিশু কিশোরদের মেধা বিকাশে সহযোগিতা করে । তাই এই চাল আমি খাই আপনাদের ও খাওয়া উচিৎ ।

এরপর এসইপি প্রকল্পের প্রজেক্ট ম্যানেজার আবু বককর সিদ্দিক আবু এই প্রকল্পের সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন এই প্রজেক্ট সর্ম্পকে সবাইকে ধারণা দেন।

উপস্থিত সবাই প্রজেক্ট সম্পর্কে উন্মুক্ত আলোচনা করেন। বক্তারা পরিবেশ সম্মত উপায়ে ফুল গ্রেইন চাল উৎপাদন এবং শ্রমিকরা যেন স্বাস্থ্যসম্মত বিষয়গুলো মেনে চলে সে বিষয়ে পরামর্শ দেন এবং মিলারদেরকে শ্রমিকদের জন্য মাস্ক, হেলমেট, চশমা, গামবুট, হাত গ্লোভস ও ফাস্ট এইড বক্স এবং নিরাপদ পানির ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করেন। এই চালে প্রচুর পরিমাণ আশ ও জিংক থাকায় খাদ্য হজম বৃদ্ধি পায় এবং শিশু-কিশোরদের বিকাশের ক্ষেত্রে গুরুত্ব পূর্ণ ভুমিকা রাখবে। এই চালের ভাত খেলে মানব দেহের উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করেন এবং ডায়াবেটিস রোগীদেরকে এই চালের ভাত খাওয়ানোর জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। ইএসডিও নিরাপদ খাদ্য নিয়ে সমাজে কাজ করার জন্য উপস্থিত সবাই ইএসডিওকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিশেষ অতিথি মোঃ মুসফিকুর রহমান বলেন, আমরা সবার আগে খাবার নিরাপদ রাখবো, নিরাপদ খাবার খেলে আমাদের শরীর ও স্বাস্থ্য দুটোই ভালো থাকবে। ইএসডিও যে ফুল গ্রেইন চালের উদ্যেগ নিয়েছে সেটা খুবই ভালো মানুষের স্বাস্থ্যর জন্য উপকার করবে।

বিশেষ অতিথি মোঃ জুলফিকার আলী বলেন, মিলে শ্রমিকরা যেন স্বাস্থ্য সম্মতভাবে নিরাপদ চাল প্রক্রিয়াজাতকরণ করে সেজন্য তিনি সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন । তিনি আরও বলেন ফুল গ্রেইন চাল যে পুষ্টিমান আছে এ বিষয়ে ডাক্তারদের সাথে সমন্বয় করলে সাধারণ মানুষের কাছে চালের উপকারীতা সর্ম্পকে জানতে পারবে তখন সাধারণ জনগন ও এই চাল খাবে ।

প্রধান অতিথি এস এম সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা বর্তমানে বাজার থেকে কিনে যে চাল খাই সেই চালে কোন ভিটামিন থাকে না। কারণ এই চালের উপরিভাগের আবরণ বা ভিটামিন অংশ থাকে না। এটা পলিশ করে, উপরের আবরণ ও ভিটামিন অংশ তুলে ফেলা হয়। ফলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন রোগ বাসা বাধে এবং আমরা অসুস্থ হয়ে পরি। তিনি বলেন এই ফুল গ্রেইন চাল ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের জন্য খুবই উপকারী এবং এই চাল খেলে হজম শক্তি বাড়বে, তাই শরীর সুস্থ্য থাকবে।

সভায় তিনি বলেন আমি ইএসডিও- এসইপি প্রকল্পের ফুল গ্রেইন চাল নিয়মিত খাই । তিনি উপস্থিত সবাইকে এই ফুল গ্রেইন চাল পরামর্শ দেন এবং এই প্রজক্ট হাতে নেওয়ার জন্য তিনি পিকেএসএফ ও ইএসডিও ধন্যবাদ জানান । তিনি ফুল গ্রেইন চাল নিয়ে গবেষণা করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করতে বলেন এ বিষয়ে সহযোগিতার প্রয়োজন হলে সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন ।

সবশেষে সভাপতির সমাপনী বক্তব্য তিনি এই প্রজক্ট হাতে নেওয়ার জন্য তিনি ইএসডিও কে এবং উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে আজকে এই সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..