বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫১ অপরাহ্ন

সাম্প্রদায়িকতা ও পূজা মন্ডপ ভাঙচুরের প্রতিবাদে সভা-পদযাত্রা

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১

দেশের বিভিন্ন জেলায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর সাম্প্রদায়িক হামলা, শারদীয় দূর্গ পূজার মন্ডপ ভাঙচুরের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা ও পদযাত্রা করেছে বেসরকারি গণগ্রন্থাগার পরিষদ এবং পাঠাগার আন্দোলন বাংলাদেশ। আজ সোমবার (২৫ অক্টাবর) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে ‘গ্রন্থপাঠ রুখবে সাম্প্রদায়িকতা’ র্শীষক এই প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে প্রেসক্লাবের সামনে থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পর্যন্ত কালো পতাকা নিয়ে পদযাত্রা করেন তারা। বাংলাদেশ বেসরকারি গণগন্থাগার পরিষদের চেয়ারম্যান ইমাম হোসেনের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বেসরকারি গণগ্রন্থাগার পরিষদের মহাসচিব নাসিম আহমেদ।

প্রতিবাদ সভা এবং পদযাত্রায় বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক এআইজি মালিক খসরু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মোশাররফ হোসাইন, অধ্যাপক ড. আলী হোসেন চৌধুরী ট্রেজারার, সিসিএন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান, ফরিদপুর জেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য পাঠাগারের উদ্যোক্তা শেখ সহিদুল ইসলাম, কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুস সাত্তার, ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল হাসান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া এই প্রতিবাদ সভা এবং পদযাত্রায় সারা দেশের গ্রামীণ পাবলিক লাইব্রেরি কর্মী ও সংস্কৃতি কর্মীরা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশগ্রহণ করেন। তারা তাদের বক্তব্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা জানান।

পদযাত্রা শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ হাবিবা রহমান খান শেফালী বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে এখনো স্বাধীনতাবিরোধী, পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ও নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। এসব ন্যাক্কারজনক হামলার ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর বাংলায় কোনো ধরনের সাম্প্রদায়িকতার স্থান নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, পাঠাগার আন্দোলনের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের মাঝে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জাগিয়ে তুলতে হবে।

সভায় বাংলাদেশ বেসরকারি গণগন্থাগার পরিষদের চেয়ারম্যান ইমাম হোসেন বলেন, ভবিষ্যতে এই ধরনের সহিংসতার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়, এজন্য অনেক বেশি নৈতিক গুণসম্পন্ন পাঠক তৈরি করতে হবে। পাশাপাশি প্রশাসনকেও শক্ত হতে হবে। পাঠক সমাজের এ আন্দোলনের ধারাকে অবশ্যই জারি রাখতে হবে।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x