রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন

১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের করোনার টিকাদান শুরু

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১ নভেম্বর, ২০২১

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ক্ষেত্রে একমাত্র বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলো শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান। সেই ক্ষেত্রে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। সর্বশেষ ১৮ বছর পর্যন্ত টিকা দেওয়া শুরু হয়। এবার ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এ কর্মসূটির উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিতিতে নবম শ্রেণির ছাত্রী মাহবুবা তমা ও আরেক শিক্ষার্থী তাহসান হাবিবকে টিকা দেওয়া হয়। মতিঝিলের আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ রাজধানীর আটটি কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম চলবে। মতিঝিল ও রমনা এলাকার শিক্ষার্থীরা মতিঝিলের আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে টিকা নিচ্ছে।

জানা গেছে, স্কুলশিক্ষার্থীদের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা দেওয়া হবে। টিকা দেওয়ার জন্য প্রতিটি স্কুলে থাকবে ২৫টি বুথ। প্রাথমিক পর্যায়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের মাধ্যমে রাজধানীর আটটি স্কুলকে ক্লাস্টার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আট স্কুলের প্রতিটিতে গড়ে দৈনিক দুই হাজার ৫০০ থেকে তিন হাজার টিকা দেওয়া হবে।

সকালে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এবং শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেন, টিকা দেয়ার পরও আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেলে চলতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের সব মানুষকে নিয়েই ভাবেন। যত দ্রুত সম্ভব আমরা যেন শিক্ষার্থীদের টিকা দিতে পারি সেই নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এই কার্যক্রমে প্রথম শিশু হিসেবে টিকা নিয়েছেন রাজধানীর মতিঝিলের আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী তাহসান হোসেন।

তাহসানের পর ২য় এবং প্রথম মেয়ে শিশু হিসেবে কোভিডের টিকা গ্রহণ করেন একই শ্রেণীর শিক্ষার্থী মাহজাবিন তমা। এসময় তারা দুজনেই ফাইজারের টিকা গ্রহণ করেন।

টিকা নেওয়ার পর তাহসান হোসেন বলেন, এতদিন মনের ভেতর করোনা নিয়ে যে ভয়টা ছিল, তা এখন আর সেভাবে কাজ করবে না। ভয়হীনভাবে পড়াশোনা করতে পারবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x