বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:৪৩ অপরাহ্ন

জনবহুল স্থাপনায় বোমা হামলার ছক করছিল জঙ্গিরা

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৭১

নিউজটি শেয়ার করুন

নীলফামারী থেকে আটক হওয়া পাঁচ জঙ্গি ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) দিয়ে বোমা হামলা চালিয়ে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি এবং শীর্ষ জঙ্গিদের জেল থেকে মুক্ত করার পরিকল্পনা করছিল। এ তথ্য জানিয়েছেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

আটক জঙ্গিদের কাছ থেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্য দিয়ে তিনি জানান, এ জঙ্গিরা জেএমবির সামরিক শাখার সদস্য। ইন্টারনেটের বিভিন্ন ওয়েব পেজ দেখে তারা দীর্ঘদিন ধরে বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ নেন। মূলত জেলখানায় অন্তরীণ থাকা শীর্ষ জঙ্গিদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার পথে হামলা চালিয়ে মুক্ত করাই ছিল উদ্দেশ্য। পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, গুরুত্বপূর্ণ ও জনবহুল স্থাপনায় বোমা হামলা চালিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করার লক্ষ্যে তারা এসব অত্যাধুনিক বোমা তৈরি করেন।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে র‍্যাব-১৩ এর রংপুর সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। এর আগে মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে নীলফামারী সদর উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের পুটিহারি মাঝাপাড়া গ্রামে শরিফুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির বাড়ি থেকে জঙ্গি সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করে র‍্যাব।

আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলো- সদর উপজেলার উত্তর মুশরত কুখাপাড়া গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে আহিদুল ইসলাম আহিদ ওরফে পলাশ (২৬), তার ভাই জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ওরফে জোবায়ের (২৭), একই উপজেলার পশ্চিম কুচিয়ামোড় পাঠানপাড়া গ্রামের ওয়াজ্জুউদ্দীন মাসুদের ছেলে ওয়াহেদ আলী ওরফে আব্দুর রহমান (৩০), দক্ষিণ বালাপাড়ার তছলিম উদ্দিনের ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুন ওরফে ডা. সুজা (২৬) এবং সোনারায় কাচারীপাড়ার মৃত রজব আলীর ছেলে নূর আমিন ওরফে সবুজ (২৮)।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x