শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন

নদ-নদীতে পানি বাড়ছে, তলিয়ে যাচ্ছে কৃষকের কষ্টের ফসল

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

ভারতের মেঘালয়ে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের নদ-নদীতে আবারও পানি বাড়ছে। সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনায় হাওরের বোরো ধান কাটার পাশাপাশি বাঁধ রক্ষায় নিয়োজিত কৃষকরা নতুন করে ঝুঁকির মুখে পড়েছেন। এরই মধ্যে তাহিরপুরে বাঁধে ধস দেখা দিয়েছে। পানিতে সৃষ্ট ঢেউ বাঁধের ওপর দিয়ে যাচ্ছে। ধান কাটার কাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। গাজীপুর ও টাঙ্গাইল অঞ্চলে নদ-নদীর পানি বাড়ায় তলিয়ে গেছে ফসলের ক্ষেত।

সুনামগঞ্জের প্রধান নদী সুরমায় বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পানি ৬২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সময় সীমান্ত নদী যাদুকাটার পানি বেড়েছে ২৬ সেন্টিমিটার। পুরাতন সুরমায় পানি বেড়েছে ২০ সেন্টিমিটার। এই নদীগুলোয় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাওরের বোরো ফসল রক্ষা বাঁধ টেকানো নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। ১৫ দিন ধরে পাহাড়ি ঢলের প্রথম ধাক্কায় ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধগুলো যেকোনো সময় ভেঙে ফসলহানির আশঙ্কা করছে প্রশাসন। বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং করে ধান কাটার আহ্বান জানানো হচ্ছে কৃষকদের।

গতকাল দুপুর ২টায় সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের বরাত দিয়ে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) তাদের বুলেটিনে জানিয়েছে, সুনামগঞ্জ, সিলেট, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলার নদ-নদীতে দ্রুত পানি বাড়ছে। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর ও ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের গাণিতিক মডেল পর্যালোচনা করে জানানো হয়, ভারতের মেঘালয় ও আসাম প্রদেশের বিভিন্ন এলাকায় ভারি বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা রয়েছে। সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনার নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপত্সীমা অতিক্রম করতে পারে। ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টায় জেলায় বন্যার উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, গত ৪৮ ঘণ্টায় ভারতের চেরাপুঞ্জিতে ২৮৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। বর্ষণের পানি নেমে আসছে নদ-নদী দিয়ে।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x