বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:২৫ অপরাহ্ন

দেশ নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে- পীর সাহেব চরমোনাই

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) বলেছেন, বাংলাদেশে একটি মহল বিভিন্নভাবে দেশ ও ইসলামকে নিয়ে গভীর চক্রান্তে লিপ্ত। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া কয়েকটি ঘটনা উল্লেখ করে তিনি এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন। সরকার একদিকে মদের উন্মুক্ত বৈধতা দেয়ার অপচেষ্টা করছে অপর দিকে শিক্ষা সিলেবাস থেকে ধর্মীয় শিক্ষা বাদ দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে। সেই সাথে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। সব মিলিয়ে দেশের সাধারণ মানুষ চরম উৎকণ্ঠায় দিনাতিপাত করছে। এমতাবস্থায় সরকারের অযৌক্তিক ও ভুল কাজে সমালোচনা করা নাগরিক দায়িত্ব। কিন্তু বাংলাদেশে এ অধিকার চরমভাবে খর্ব করা হচ্ছে।

বুধবার ২০ এপ্রিল রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ ভোজন রেস্তোরাঁয় ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ আয়োজিত “সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণে করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভা ও বন্ধুপ্রতীম ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সম্মানে ইফতার মাহফিল”-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন তিনি। ইফতার মাহফিলে অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, সহকারী মহাসচিব ইমতিয়াজ আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ড. রশিদ আহমাদ, বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক মুফতি জহির ইবনে মুসলিমসহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরামের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মাদ আল-আমিনের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, এডভোকেট এম হাছিবুল ইসলাম, বরকতউল্লাহ লতিফ, শেখ ফজলুল করীম মারূফসহ সাবেক নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও ১৫টি ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ইফতার মাহফিলে অংশ নেন। ছাত্র অধিকার পরিষদ সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা, নাগরিক ছাত্র ঐক্য সভাপতি মোশাররফ হোসেন, ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ সভাপতি নিজাম উদ্দিন আদনান, ইসলামী ছাত্র মজলিস সভাপতি তারেক হাবিব, ইসলামী ছাত্র খেলাফত সভাপতি আবুল হাশিম, ইসলামী ছাত্রসমাজ সভাপতি আতিকুর রহমান, জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়া সভাপতি জহিরুল ইসলাম, মুসলিম ছাত্রলীগ সভাপতি নুর আলম, বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিস সভাপতি খালেদ সাইফুল্লাহ, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক ছাত্র আন্দোলন সভাপতি মাসুদ রানা জুয়েল, ছাত্র মিশন সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিস সাধারণ সম্পাদক বেলাল চৌধুরী প্রমূখ ভ্রাতৃপ্রতিম ছাত্র নেতৃবৃন্দ।

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, দেশে ক্ষমতা ও রাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠার লড়াই দৃশ্যমান। যার বলি হচ্ছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ঠুনকো ইস্যুকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের উপর প্রশাসনের বর্বরোচিত হামলা দুঃখজনক। তিনি ঢাকা কলেজ ও নিউমার্কেট ব্যবসায়ীদের মধ্যে চলমান ঘটনার তদন্ত চেয়ে দোষীদের শাস্তির দাবি জানান।

সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছাত্র নেতা নূরুল করীম আকরাম বলেন, শিক্ষার্থীদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে নামাজের জায়গা চেয়ে আবেদন যৌক্তিক। কিন্তু নামাজের জায়গা বন্ধ করে তাদের বিরুদ্ধে হুমকি-ধমকি দেয়া অসাংবিধানিক আচরণ। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল মত ও পথের সমান সুযোগ সৃষ্টিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কার্যকরী পদক্ষেপ প্রত্যাশা করেন।

কর্মসূচি : আল আকসায় ইসরাইলের বর্বর হামলার প্রতিবাদে ২২ এপ্রিল শুক্রবার বাদ জুমা ঢাকায় বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x