শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন

শ্বেতপত্র দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি একটি পরিকল্পিত অপরাধ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৮ মে, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ একটি প্রাšিত্মকতা অতিক্রম করছে। বিশ্ব রাজনীতির নানা ধরণের টানাপোড়ন, দেশে ভোটবিহীন সরকারের দীর্ঘ শাসন, দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি ও নাগরিক অস্থিরতার এই সময়ে ঘাদানিকের মিথ্যা তথ্যে পরিপূর্ণ এই শ্বেতপত্র বহুমাত্রিক ষড়যন্ত্রের অংশ বলে মšত্মব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই।

আজ শনিবার বিজয়নগরস্থ একটি রে¯েত্মারায় জাতীয় ওলামা মাশায়েখ পরিষদ আয়োজিত নাগরিক মতবিনিময় সভায় তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদের সভাপতি আলস্নামা নুরম্নল হুদা ফয়েজীর সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মাওলানা গাজী আতাউর রহমানের পরিচালনায় উক্ত মতবিনিময় সভায় আরো আলোচনা করেন, দেওনার পীর সাহেব অধ্যড়্গ মিজানুর রহমান চৌধুরী, এবি পার্টির সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মঞ্জু, এন.ডি.এম-এর চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর আব্দুল লতিফ মাছুম, সাবেক সংসদ সদস্য ডা. আক্কাস আলী সরকার, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নায়েবে আমীর মাওঃ মুজিবুর রহমান হামিদী, ইসলামী ঐক্যজোটের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শেখ লোকমান হোসেন, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির মহাসচিব মুফতী আবদুল কাইয়ূম, মুসলিম লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আতিকুল ইসলাম, ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মো¯ত্মফা ভূঁইয়া, বিশিষ্ট রাষ্ট্রচিšত্মক গৌতম দাস ও দিদারম্নল ইসলাম, ইসলামিক কালচারাল ফোরামের মহাসচিব মাওলানা নাজমুল হক, মো¯ত্মফা আনোয়ার খান, দেশ রড়্গা আন্দোলনের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম সানোয়ার হোসেন, অনলাইন এক্টিভিষ্ট মাওলানা রম্নহুল আমীন সাদী, গণ অধিকার পরিষদ নেতা সাদ্দাম হোসেন প্রমূখ। অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যড়্গ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, মাওলানা আহমদ আব্দুল কাইয়ূম, মুফতি হেমায়েতুলস্নাহ কাসেমী, মুফতি কেফায়েতুলস্নাহ কাশফী, মুফতি শামছুদ্দোহা আশরাফী, মুফতি রেজাউল করীম আবরার, রশিদ আহমদ ফেরদাউস, মুফতী সাঈদ আহমদ কলরব।

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার অন্যতম ভিত্তি হলো ইসলাম। ইসলামের ভিত্তি আমাদেরকে ভারতে একাকার হওয়া থেকে রড়্গা করে। আর উলামায়ে কেরাম ও মাদরাসা সমূহ নিরবিচ্ছিন্ন কর্মকা-ের মাধ্যমে জনতার মাঝে ইসলাম বোধ জাগ্রত করেছে। ঘাদানিক সেই উলামাদেরকে লড়্গ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। যাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের একটি ভিত্তিকে দুর্বল করে দেয়া যায়। ‘ভারত দেশকে অস্থিতিশীল করতে চক্রাšত্ম করছে, আর যারা তাদের দালাল হয়ে এদেশে কাজ করছেন আমাদের তাদের চিহ্নিত করতে হবে। কারণ ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে আলাদা একমাত্র রেখা হচ্ছে আলেম-ওলামা ও ইসলাম।’ প্রয়োজনে ফতোয়া বোর্ড গঠন করা উচিত মšত্মব্য করে তিনি বলেন, ‘যারা ভারতের দালাল হয়ে ইসলাম, এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও আলেম-ওলামাদের বিপড়্গে গিয়ে পড়্গপাতিত্ব করছেন, তাদের জানাজার নামাজ পড়ানো যাবে না এবং কোনো মুসলমানের কবরস্থানে তাদের দাফন করা যাবে না এই মর্মে ফতোয়া বোর্ড হওয়া উচিত।’

ইসলাম বিরোধী সকল অপকর্মের বিরম্নদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ফয়জুল করিম বলেন, ‘আমরা যদি মরার জন্য ঐক্যবদ্ধ হই তাহলে কেউ মরবো না, কেউ আমাদের কোনো কিছু করতে পারবে না কিন্তু বেঁচে থাকার জন্য যদি বিচ্ছিন্নভাবে নিজে নিজে বেঁচে থাকতে চাই তাহলে কেউ বেঁচে থাকতে পারবো না। তাই আসুন দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব-ভূখন্ড, ঈমান ও ইসলামের স্বাধীনতা রড়্গায় সবাই ঐক্যবদ্ধ হই।’

হেফাজত ইসলামের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, ‘ঈমান রড়্গায় জীবনের পরোয়া করি না। মুসলমানদের অšত্মরে রক্তড়্গরণ হচ্ছে। আমাদের মধ্যে আদর্শিক ঐক্য হতে হবে। আলেম-ওলামা ও ইসলামের উপর কটাড়্গ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আলেম ওলামারা আজ দুঃসময় পার করছেন। বিনা বিচারে তাদের অনেকে জেলখানায় বন্দি। তারা যাতে জেলখানা থেকে মুক্তি না পায় সে জন্য বিভিন্ন রকমের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। কারণ দেশ, জাতি ও ইসলামের পড়্গে বিদেশি আগ্রাসনের বিরম্নদ্ধে একমাত্র সোচ্চার ভূমিকা পালন করছেন আলেম ওলামারাই।’

দেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি উদ্বেগজনক মšত্মব্য করে এই নেতা বলেন, ভবিষ্যৎ রাজনীতির স্বার্থে যে কোনো শর্তে ড়্গমতায় যেতে চাই মর্মে হয়ত কেউ কেউ বস্ন্যাংক চেক দিয়ে রেখেছেন। ‘আমরা ঐক্য ধরে রাখতে পারিনি, ব্যর্থ হয়েছি। কুচক্রী মহলের প্ররোচনায় না পড়ে আমরা যদি সুন্দরভাবে সরকারের সঙ্গে সেদিন রফাদফা করতে পারতাম তাহলে আজকের এই না¯িত্মক মহল আলেম-ওলামাদের নিয়ে মিথ্যা তথ্য ও বিভ্রাšত্মমূলক তালিকা তৈরি করতে পারত না।’ আর ধোঁকা খাইতে রাজী না, পরীড়্গতি নেতৃত্বে এই দেশে ইসলাম ও জাতির দুশমনদের বিরম্নদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। স্বাধীনতার পর থেকে গড়ে ওঠা অতীত ইসলামি আন্দোলনের সফলতা ব্যর্থতা থেকে শিড়্গা নিয়ে আগামী দিনে সিদ্ধাšত্ম নিতে হবে বলেও মšত্মব্য করেন মিজানুর রহমান চৌধুরী।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x