শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন

জনগণের পুঞ্জিভূত ক্ষোভের বিস্ফোরণ যে কোন সময় -রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন,বর্তমান আওয়ামী শাসন পুরনো বাকশালীরই পূন:মুদ্রন। নব্যবাকশালী আওয়ামী শাসন যন্ত্রের কাছে এদেশের সংগ্রামী জনগণ কখনো মাথা নত করবে না। জনগণের পুঞ্জিভূত ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটবে যেকোন সময়। বর্তমান বিপন্ন সময়ে দাঁড়িয়ে জনগণ তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। জনগণ এই অপশক্তির কাছে কখনোই আত্মসমর্পন করবে না।

যশোরে জেলা যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি বদিউজ্জামান ধনিকে খুন এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী এসব কথা বলেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি মামুন হাসান, সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম নয়ন, সাধারণ সম্পাদক মোনায়েম মুন্না, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসাহাক সরকার প্রমুখ।

রিজভী বলেন, যশোর জেলা যুবদলের সিনিয়র সহ সভাপতি বদিউজ্জামান ধনিকে ঈদের ২য় দিনে দিন-দুপুরে প্রকাশ্যে তার বাড়ির সামনে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার সময় নিজের বাড়ির সামনে একটি দোকানে বসে চা পান করছিলেন ধনি। এলাকাবাসী তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। গতকাল বুধবার কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর কালীগঞ্জ ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলামকে মধ্যযুগীয় কায়দায় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা নৃশংসভাবে হত্যা করেছে।

বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, চট্টগ্রামের মীরের সরাইয়ে বিএনপি নেতা শহীদুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়িতে আওয়ামী সন্ত্রাসী কর্তৃক অগুন দেওয়া হয়েছে। ময়মনসিংহে দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আক্তারুজ্জামান বাচ্চুর গফরগাঁয়ের বাড়িতে হামলা চালানো হয়েছে।

এসব ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানান রিজভী।

বিএনপির এই নেতা বলেন,বাংলাদেশে প্রকৃত আইনের হাতের চেয়েও অবৈধ ক্ষমতার হাত অনেক লম্বা। ছাত্রলীগ, যুবলীগ এক সর্বনাশা- সময় সৃষ্টি করেছে। বর্তমান এই ঘোর দুর্দিনে জনগণের জান-মাল এখন ভয়ানক বিপন্ন। তাদের অব্যাহত গুম, খুন, নারী শিশু নির্যাতনে সারাদেশে এক বিষাদের ছায়া নেমে এসেছে। সরকারের নির্দেশেই বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের হত্যা ও নির্যাতনের পথ বেছে নিয়েছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা।

কোন কারণ ছাড়াই থানায় থানায় মিথ্যা মামলার হিড়িক চলে উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, গত ১৪ বছরে প্রায় সারাদেশে হাজার-হাজার নেতাকর্মী হত্যা ও নির্যাতনের শিকার। গুম ও বিচারবর্হিভূত হত্যার শিকার হয়েছেন বেশ কয়েক হাজার নেতাকর্মী। দেড় লক্ষাধিক মিথ্যা মামলায় আসামী করা হয়েছে প্রায় ৩৫ লাখ নেতাকর্মীকে। বিএনপি’র মৃত নেতা, পবিত্র হজ্ব পালনরত নেতা, পক্ষাঘাতগ্রস্থ নেতার নামেও তারা মামলা দিয়ে জনগণের কাছে হাসির পাত্র হয়েছে। তারা নিজেরাই প্রমানিত করলো তারা যে মিথ্যা মামলা দেয়। গুম ও বিচারবর্হিভূত হত্যা প্রত্যেকটির সাথে ক্ষমতাসীনরা জড়িত। এদের আমলে নারী ও শিশুর উপর নির্যাতন চলছে নারকীয় কায়দায় ধারাবাহিকভাবে। প্রতিনিয়ত আওয়ামী নেতাদের দ্বারা শিক্ষকরা লাঞ্ছিত হচ্ছেন। এই সরকারের আমলে নারীর জীবন, সম্ভ্রম, লজ্জা, সম্মান উপেক্ষিত। মায়ের পেটের শিশুও তাদের হাতে নিরাপদ নয়।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, এই সরকারের আমলে ৪৫ জন সাংবাদিক হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে। সাগর-রুনির হত্যার বিচার আজও হয়নি। স্বাধীন মতপ্রকাশের কারণেই বেছে বেছে সাংবাদিকদেরকে হত্যা করা হয়েছে এবং বন্দি করা হচ্ছে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে গণতন্ত্রের কষ্টিপাথর মনে করা হয়।
অথচ মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে শত্রুবলে মনে করে সরকার। এই কারণেই আজ স্বাধীন বিবেকের উপর অবৈধ সরকারের ক্রমাগত সন্ত্রাসী হামলা অব্যাহত রয়েছে।

রিজভী বলেন, দেশের সাবেক প্রধামন্ত্রী গণতন্ত্র উদ্ধার ও প্রতিষ্ঠা এক অবিসংবাদীত নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে প্রতিহিংসামূলক আওয়ামী বিচারের বন্দিশালায় বন্দি করে রাখা হয়েছে। মিথ্যা মামলায় একের পর এক সাজা দেয়া হচ্ছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে। এতেই দেশের যে বিপজ্জনক পরিস্থিতির উপলব্ধি করা যায়। আওয়ামী মরণঘাতি ভাইরাস গোটা রাষ্ট্র ও সমাজকে কুরে কুরে খাচ্ছে।

রিজভী বলেন,সাম্প্রতিক সহিংস রক্তপাতের যে ভয়ানক পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছে তাতে ঘোটা জাতি স্তম্ভিত ও শঙ্কিত। মনে হচ্ছে যেন শয়তান লুসিফারের অত্যুল্লাস। ১/১১’র অসাংবিধানিক সরকারের সহায়তায় আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় বসার পর থেকে বিরোধী দল তথা বিএনপিকে নির্মূলের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে অবৈধ সরকার। গুম, খুন, বিচারবর্হিভূত হত্যা, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী, বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও নির্যাতন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। এরা ক্ষণে ক্ষণে জনগণকে শাসাচ্ছে।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x