মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:১০ অপরাহ্ন

ডেঙ্গু সম্পর্কিত পরামর্শের জন্য ডিএনসিসিতে কন্ট্রোল রুম চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

বিদ্যমান ডেঙ্গু পরিস্থিতিতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) নগরবাসীকে বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষার স্থান এবং ডেঙ্গুজ্বর সম্পর্কিত যেকোনো তথ্য বা ডেঙ্গু সম্পর্কিত যেকোনো অভিযোগের জন্য কন্ট্রোল রুম চালু করা হয়েছে। আজ শনিবার বিকেলে ডিএনসিসির জনসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডেঙ্গুর বিষয়ে নগরবাসী জানতে এবং যেকোনো পরামর্শ নিতে নিম্নবর্ণিত নম্বরগুলো দেওয়া হয়েছে- ০১৭৬৯১০০৬৮০, ০১৭১৬৫০৬২৫৮, ০১৭১৫২৩৮৭৫৪, ০১৭১৫৪৫৬৬৯৮, ০১৭৫৬২০৯৪৮২, ০১৭১৬৩৯৮৮৮৬, ০১৭৩৫৮৪৩৬৯৩

এছাড়া শহরের বাসা-বাড়ির ছাদের ছাদ বাগান, ছাদে জমা পানি, চৌবাচ্চা এবং বৃষ্টির পানি বা পরিস্কার পানি জমতে পারে এধরণের স্থান ও পাত্র সার্ভে করা এবং অব্যবহৃত টায়ার, কমোড ও মশার প্রজননক্ষেত্র রয়েছে কিনা সেটি দেখতে অত্যাধুনিক ড্রোন ব্যবহার করছে ডিএনসিসি। অত্যাধুনিক ড্রোন এর সাহায্যে সেগুলো খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এর ফলে প্রতিটি বাড়ির ছাদে না উঠেই নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে মশার উৎস সম্পর্কে।

গত ৩০জুন সকালে রাজধানীর উত্তরা সেক্টর-৪ এলাকায় ড্রোন সার্ভে কার্যক্রম পরিদর্শনে এসে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম ২জুলাই থেকে ১১জুলাই ঢাকা উত্তর সিটির আওতাধীন প্রতিটি বাসা বাড়ির ছাদে অত্যাধুনিক ড্রোনের মাধ্যমে বিশেষ অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দেন। বিদ্যমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি বিবেচনায় ০২জুলাই ২০২২ থেকে শুরু হওয়া অভিযান এখনো চলমান রয়েছে। আজ ১৬জুলাই ২০২২ পর্যন্ত চলা এই ড্রোন সার্ভে কার্যক্রমের মাধ্যমে মোট ৭৭৮৬টি বাড়ির ছাদ, ১৩৪৩টি ছাদ বাগানে ড্রোন সার্ভে করা হয়। এর মধ্যে ২২৮টি ছাদে জমা পানি পাওয়া যায় এবং ৫টি বাড়ির ছাদে এডিসের লার্ভা সনাক্ত করা হয়। বাড়ির মালিকদের সতর্ক করে দেয়া হয় এবং লার্ভা পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়।

এছাড়াও ওয়াশার পানির মিটার এবং এজাতীয় অন্যান্য স্থানে প্রতিমাসে প্রথম সপ্তাহে দানাদার কীটনাশক নোভালুরন প্রয়োগ করা হচ্ছে। মশার প্রজনন স্থান হিসেবে চিহ্নিত সকল নালা, নর্দমা এবং জলাশয়ে নিয়মিত গাপ্পি মাছ ছাড়া হচ্ছে।

এদিকে নির্মাণাধীন ভবনে নিয়মিত লার্ভিসাইডিং করা হচ্ছে। এছাড়া ভবন মালিক এবং নিমার্ণ শ্রমিকদেরকে জমে থাকা পানিতে কেরোশিন তেল প্রয়োগ এর পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

গত ০৪ জুলাই সকালে রাজধানীর গুলশান-২ এ নগর ভবনে বর্ষা মৌসুমে এডিস মশার বিস্তার নিয়ন্ত্রনে করণীয় সম্পর্কে রিহ্যাব (REHAB-Real Estate and Housing Association of Bangladesh) নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ডিএনসিসির মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএনসিসি মেয়র এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে সিটি কর্পোরেশনের সাথে রিহ্যাবকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান করেন। সভায় রিহ্যাবের পক্ষ থেকে সকল সদস্যদের নির্মাণাধীন ভবনে ব্যবহারের জন্য বিনামূল্যে মশা নিধন কীটনাশক নোভালুরোন ট্যাবলেট বিতরণ করা, প্রতিটি নির্মাণাধীন ভবনে সতর্কতামূলক ও সচেতনতামূলক ছবি সম্বলিত ব্যনার লাগানোসহ সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এছাড়াও নগরবাসীকে সচেতন করার লক্ষ্যে ডিএনসিসির প্রতিটি অঞ্চলে মাইক এর সাহায্যে সচেতনতা মূলক বার্তা প্রচার করা হচ্ছে এবং সচেতনতা বার্তা সম্বলিত লিফলেট ও স্টীকার বিতরণ করা হচ্ছে। বাসা বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x