শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৫ পূর্বাহ্ন

‘মনে হয় দেশটা আফগানিস্তান হয়ে গেছে’ -মেনন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০২২

নিউজটি শেয়ার করুন

দেশে মৌলবাদীদের ‘নব উত্থান’ হয়েছে মন্তব্য করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘রাস্তায় বের হলে মনে হয় বাংলাদেশে নয়, আফগানিস্তানের পথ দিয়ে হাঁটছি।’ শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম মিলনায়তনে দেশের সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতি নিয়ে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

ধর্ম অবমাননার কথিত অভিযোগে নড়াইলে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রসঙ্গ টেনে মেনন বলেন, ‘যে ঘটনাগুলো ঘটছে, এগুলো বাংলাদেশের চরিত্র নয়। পরিকল্পিতভাবে দেশজুড়ে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনাগুলো ঘটানো হচ্ছে। নড়াইলের ঘটনায় সেটিই মনে হয়েছে।’

শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্মরণে এ আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের জোটসঙ্গী ওয়ার্কার্স পার্টি। দলটির সভাপতি রাশেদ খান মেনন আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘মৌলবাদী শক্তিকে বিশ্বাস করলে পস্তাতে হবে। দেশে এখন মৌলবাদীদের নবউত্থান হয়েছে। রাস্তায় বের হলে মনে হয়, বাংলাদেশে নয় আফগানিস্তানের পথ দিয়ে হাঁটছি। চারদিকে তাকালে মনে হয় দেশটা আফগানিস্তান হয়ে গেছে, বাংলাদেশ নয়।’

সাম্প্রদায়িকতা-মৌলবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মেনন বলেন, ‘সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে গণ–আদালত, গণজাগরণ মঞ্চ যেভাবে এক হয়েছিল, তেমনি আবার ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ঐক্যবদ্ধভাবে তরুণদের নিয়ে মাঠের লড়াই করে সাম্প্রদায়িকতা ঠেকাতে হবে।
দেশে সাম্প্রদায়িকতা বিস্তারের ইতিহাস তুলে ধরে অনুষ্ঠানে ইতিহাসবিদ সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘সামরিক শাসক জিয়া ও এরশাদ সংবিধানে বিসমিল্লাহ ও রাষ্ট্রধর্ম সংযোজন করে দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যাওয়ায় আজ অবস্থা ভয়াবহ! এখন জাতি ধর্ম নির্বিশেষে এর খেসারত দিতে হচ্ছে। যে বাংলাদেশের স্বপ্ন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, তা হাতছাড়া হয়ে গেছে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বিবর্ণ জয়ন্তীতে পরিণত হয়েছে।’

সাম্প্রদায়িক শক্তির উত্থানকে সম্মিলিতভাবে মোকাবেলার আহ্বান জানান এই ইতহাসবেত্তা। সরকারকে সতর্ক করে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘হেফাজতের সঙ্গে আপস করা আত্মহত্যার সামিল। আর মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িকতা মোকাবেলায় সব সময় তরুণদের সঙ্গে রাখতে হবে। আগামীর আন্দোলনে তরুণদের প্রয়োজন। দেশে যুদ্ধাপরাধের কিছু বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধের আংশিক বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধী দল হিসেবে জামায়াতের বিচার অদৃশ্য কারণে আটকে আছে। এই বিচার না হলে সাম্প্রদায়িক শক্তি আস্কারা পেতে পেতে দেশকে আফগানিস্তানের মত ভয়াবহ অবস্থায় নিয়ে যাবে।

আলোচনা অনুষ্ঠানের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। আলোচনায় আরও অংশ নেন আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং। আর অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দলটির পলিটব্যুরোর সদস্য নুর আহমদ বকুল।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x