বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:১৭ পূর্বাহ্ন

ডিএনসিসির উপ নির্বাচনে রফিকুলকে কাউন্সিলর দেখতে চান সচেতনরা

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৯ মে, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উপনির্বাচনে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকে তরুণ প্রার্থী রফিকুল ইসলামকে জয়ী দেখতে চান এলাকার সচেতন নাগরিকরা। তারা মনে করেন এই তরুণ মেধাবী প্রার্থীর পক্ষেই সম্ভব বৃহৎ ওয়ার্ডকে স্মার্ট ওয়ার্ডে পরিণত করা। ইতিমধ্যে ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় সেনা পরিবারসহ নানা মহলে ভোটের জরিপের জনমতে স্বেচ্ছা সেবক লীগনেতা রফিকুল এগিয়ে রয়েছেন।

এ বিষয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানা এলাকার বাসিন্দা ও অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনীর কল্যাণ সোসাইটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহঙ্গীর আলম (অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট) বলেন, “এই নির্বাচনে আমার দেখা যত প্রার্থী রয়েছে, এর মধ্যে রফিকুল অন্যতম। এর একমাত্র কারন তার ক্লিন ইমেজ। তাই আমরা তাকে সমর্থন দিচ্ছি এবং আশাবাদী সে বিপুল ভোটে জয়ী হবে।”

অন্যদিকে মাটিকাটা এলাকার বাড়ি মালিক সমিতি ও দোকান মালিক সমিতির সভাপতি ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা ইমরান হোসেন খোকন বলেন, রফিকের জয়ের জন্য আমরা টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকের জন্য জনসংযোগ করছি এবং ভোট চাচ্ছি। তাকে সবাই আশ^স্ত করছে। আশা করি সেনা পরিবারের এই সন্তান কাউন্সিলর পদে আসলে সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা দিতে পারবে এই ওয়ার্ডের জনগনের মাঝে। প্রায় একই কথা বলেন, ইসিবি চত্বরের স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা শাহরিয়ার।

ভাসানটেক থানার বাসিন্দা হেলাল উদ্দিন বলেন, আমরা সর্বোচ্চ সমর্থন ও সহযোগিতা করছি রফিকুল ইসলামকে। তার মতো সাংগঠনিক ব্যক্তি প্রয়াত কাউন্সিলরের অসমাপ্ত কাজগুলো করে এই ওয়ার্ড একটি জিজিটাল ওয়ার্ডে পরিণত করবে বলে আশা করি। তাই সবাইকে বলবো এই ক্লিন ইমেজের মানুষটিকে সংশ্লিষ্টরা যেন ভোট দিয়ে জনগণের জন্য কাজ করার সুযোগ দেয়।

আগামী ১২ জুন ডিএনসিসির ১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উপ নির্বাচন। নির্বাচনকে ঘিরে ইতিমধ্যে ১৫ জন প্রার্থী জনসংযোগ করছেন। তাদের মধ্যে নির্বাচনে জয়ী হলে সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার ইশতেহার ঘোষণা করেছেন প্রার্থী রফিকুল।


এক নজরে রফিকুল: কাউন্সিলর পদে এই প্রার্থী স্কুল জীবন থেকেই ছাত্র রাজনীতি ও নানা সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রমিজ উদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি ও ঢাকা সিটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরে এশিয়ান ইউনির্ভাসিটি থেকে বিবিএ ও এমবিএ সম্পন্ন করেন। পরবর্তী ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিতি পান। একই সঙ্গে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে স্বেচ্ছাসবেক লীগের অন্যতম নেতা হিসেবে পরিচিত রফিকুল।
এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম বলেন, জনগণ যদি ভোট প্রদানের মাধ্যমে কাজ করার সুযোগ দেন, অবশ্যই আমি শতভাগ নাগরিক সেবা নিশ্চিত করবো। কারন আল্লাহর রহমতে স্কুল জীবন থেকে বিগত সময়ে নানাভাবে মানুষের কল্যাণে কাজ করেছি। যা আমার এলাকার বাসিন্দা জানেন। তাই সেনা পরিবাররের সদস্যরাসহ সকল স্তরের পেশাজীবী মানুষজন আমাকে ভালোবাসে। তারা আমাকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান।
উল্লেখ্য, ডিএনসিসির ১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ সালেক মোল্লার মৃত্যুর পর এই ওয়ার্ডের উপনির্বাচনের ঘোষনা দেওয়া হয়। ১৫ নং ওয়ার্ডটি ক্যান্টনমেন্ট থানা, ভাসানটেক থানা ও পল্লবী থানার একাংশ।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x