শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:২১ পূর্বাহ্ন

মেয়র তাপসের বিচারের দাবি বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৯ মে, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সদস্য সচিব ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসকে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। সোমবার সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন থেকে তারা এ দাবি তোলেন।

গত ২১ মে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা অনুষ্ঠানের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পদত্যাগ এবং সুশীলদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন তাপস। তার এই বক্তব্যকে বিচার বিভাগের প্রতি কটুক্তি ও সুশীলদের হত্যার হুমকি উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনে এ কর্মসূচি পালন করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

সোমবার বেলা ১টার দিকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন বিএনপির আইনহজীবীরা। তারা মিছিল করতে করতে মাজার গেট দিয়ে রাস্তায় নেমে আসে। মিছিলটি শিক্ষা ভবন মোড়, কদম ফুয়ারার পাশ দিয়ে সুপ্রিম কোর্টর মূল ফটকের সামনে গিয়ে থামে। পরে সেখানে তারা মানববন্ধন করে।

কর্মসূচির ব্যানারে লেখা ছিল- বিচার বিভাগ সম্পর্কে কটুক্তি ও সুশীলদের হত্যার হুমকিদাতা ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের বিচার চাই।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সাবেক অ্যাটর্নি জনারেল ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপির আইন সম্পাদক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব কায়সার কামাল, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক বদরুদ্দোজা বাদল, মো. রুহুল কুদ্দুস কাজলসহ আরো অনেকে।

মানববন্ধন শেষে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা মিছিল করে আইনজীবী সমিতি ভবনের নিচে আসে। সেখানে সন্ত্রাস, ভাংচুরের প্রতিবাদে আগে থেকেই বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছিলো আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা। দুই বিপরীত পন্থী আইনজীবীদের মুখোমুখী অবস্থানে তখন উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তখন সাধারণ আইনজীবীদের ওই স্থান এড়িয়ে চলতে দেখা গেছে। তখন আইনজীবীদের সংঘাত এড়াতে আদালত এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

এ সময় পাল্টাপাল্টি স্লোগান দিতে দিতে সমিতি ভবনে ঢুকে আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা সভাপতি-সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নেয়। আর বিবিএনপিপন্থী আইনজীবীরা স্লোগান থামিয়ে যে যার মত চলে যান।

তাপসকে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে আগামী ৩১ মে বেলা ১টায় সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব জেলা বারে সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসুচি ঘোষণা করেছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।

গত ২১ মে আলোচনা অনুষ্ঠানে তাপস বলেন, ‘আমি নগর ভবন থেকে শুনি যে, আমার (সুপ্রিম কোর্টে) নেতাকর্মীদের গায়ে হাত দেয়া হয়। মনটা চায় ইস্তফা দিয়ে (মেয়র পদ থেকে) আবার (সুপ্রিম কোর্টে) ফিরে আসি। একজন চিফ জাস্টিসকেউ নামায় দিসিলাম। সুতরাং এগুলা শুনলে খুব কষ্ট লাগে। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের নেতাকর্মীরা আহত হবে, তাদের গায়ে হাত দিবে এটা কোনোভাবে সহ্য করা যাবে না। মহিলা আইনজীবীদের অপদস্ত করবে, আর আইনজীবী হিসেবে আমরা বসে থাকবো, এটা হয় না। চোরদের গ্রেপ্তার করে হাজতে ঢুকাতে হবে।’

সেদিন তিনি আরো বলেছিলেন, ‘আমি দাবি করবো অবিলম্বে এসব সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হোক। আর না হলে বিচারাঙ্গনে, আইনঙ্গনে তাদের যদি পাওয়া যায় তাহলে আমরা সমুচিত জবাব দিবো। আমরা লিখতেও জানি, এজলাশে বলতেও জানি, আর যেখানে যে মুগুড় দেওয়ার, সেটাও জানি। আর যে সকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন, সে সকল সুশীলদের আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গার কালো পানিতে ছেড়ে দিবো।’

তাপসের এ বক্তব্য উদ্বৃত করে খবর প্রকাশ করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম। প্রকাশিত সেসব খবর নিয়ে গত ২৪ মে সর্বোচ্চ আদালতে যান সুপ্রিম কোর্টের প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম। সেদিন প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, ‘আমরা বক্তব্যটা ভালো করে পড়ে দেখি। তারপর কী করা যায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x