শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১০ পূর্বাহ্ন

ভারতে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০৭

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৩ জুন, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

ভারতের ওড়িশা রাজ্যে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ২০৭ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছেন ৯০০ জনের বেশি। ট্রেনের ভেতরে এখনো অনেকে আটকা পড়ে আছেন। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ভারতের রেলওয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কলকাতাগামী বেঙ্গালুরু-হাওড়া সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস ট্রেনটি ওড়িশার বাহাঙ্গাবাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয়ে পড়েছিল। চেন্নাইগামী করমন্ডল এক্সপ্রেস ট্রেনটি ওই এলাকা পেরিয়ে যাওয়ার সময় লাইনচ্যুত ট্রেনের বগির সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ভয়াবহ এই দুর্ঘটনা ঘটে। করমন্ডল এক্সপ্রেসের কয়েকটি বগি ঘটনাস্থলে একটি মালবাহী ট্রেনের বগির ওপরও আছড়ে পড়ে।

দুর্ঘটনার পর আশপাশের জেলাগুলো থেকে সেখানে উদ্ধারকারী দল পাঠিয়েছে ওড়িশা রাজ্য সরকার। দুর্ঘটনাস্থলে ৬০টি অ্যাম্বুল্যান্সও পাঠানো হয়েছে। উদ্ধারকাজে ভারতের বিমানবাহিনীর সহায়তা চেয়েছেন কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বিষ্ণু।

ভারতীয় সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত ৪৭ জনকে বালেশ্বর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আরো ১৩২ জনকে আশপাশের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওড়িশার মুখ্য সচিব প্রদীপ জেনা।দুর্ঘটনাস্থল থেকে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার পর লাইনচ্যুত বগিগুলোতে অনেক যাত্রী আটকা পড়ে আছেন। উদ্ধারকারীদের সহায়তা করছেন স্থানীয় লোকজনও। তবে রাতে অন্ধকারের কারণে উদ্ধারকাজে সমস্যা হচ্ছে।

দুর্ঘটনার খবরে দুঃখ প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

তিনি টুইট করে বলেন, ‘ওড়িশায় ট্রেন দুর্ঘটনায়আমি মর্মাহত। এই দুঃসময়ে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। আহত ব্যক্তিরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুক। পরিস্থিতি নিয়ে রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবের সঙ্গেও কথা বলেছি।’দুর্ঘটনায় নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২ লাখ রুপি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন মোদি। এ ছাড়া আহতদের ৫০ হাজার রুপি করে সহায়তা দেওয়া হবে।

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দুর্ঘটনার পর এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, রাজ্যের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘটনা পর্যবেক্ষণ করছেন। এদিকে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x