শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:১০ পূর্বাহ্ন

সংসদে অতিরিক্ত বরাদ্দের দাবি উত্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৬ জুন, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

বিরোধী দল ও স্বতন্ত্র সদস্যদের বিরোধীতার মুখে চলতি ২০২২-২৩ অর্থ বছরের সম্পুরক বাজেট পাস হয়েছে। আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে কণ্ঠভোটে ‘নির্দিষ্টকরণ (সম্পুরক) বিল-২০২৩’ পাসের মাধ্যমে সম্পুরক বাজেট পাস হয়। এই বাজেট পাসের মধ্য দিয়ে সংসদ ২০টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে অতিরিক্ত ১৭ হাজার ২৯৯ কোটি ৪৮ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ব্যয়ের অনুমতি দিয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে সম্পুরক বাজেটের অর্থ অনুমোদনের জন্য ৫৪টি মঞ্জুরি দাবির উপর ১৬৩টি ছাটাই প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। এসব দাবির মধ্যে ৩টি দাবির ওপর আনীত ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর আলোচনা হয়। এগুলো হচ্ছে- জ¦ালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয় এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়। বাকি মঞ্জুরি দাবিগুলো সরাসরি ভোটে দেওয়া হয়। অবশ্য সব ছাঁটাই প্রস্তাবগুলোই কন্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। এরপর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ‘নির্দিষ্টকরণ (সম্পুরক) বিল-২০২৩’ সংসদে উত্থাপন করলে তা কন্ঠভোটে পাস হয়।

সংসদ অধিবেশনে মন্ত্রীদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অতিরিক্ত বরাদ্দের দাবি উত্থাপন করেন। শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ানের অনুপস্থিতিতে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দাবিটি উত্থাপন করেন। কণ্ঠভোটে সেই প্রস্তাব গৃহীত হয়।

সম্পুরক বাজেটের আওতায় ২০টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বিপরীতে ১৭ হাজার ২৯৯ কোটি ৪৮ লাখ ৩৫ হাজার টাকার বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়। এরমধ্যে সর্বাধিক ৯ হাজার ৫৮৫ কোটি ৪১ লাখ ৫৭ হাজার টাকা কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়েছে। এর পরেই রয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। এই বিভাগকে ৩ হাজার ৪৯১ কোটি ৯৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকা বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়। তৃতীয় সর্বোচ্চ পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়কে ৩ হাজার ৩৫৯ কোটি ২৪ লাখ ৩৮ হাজার টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ অনুমোদন দেওয়া হয়। সবচেয়ে কম ২৪ কোটি ৭৬ লাখ ৫২ হাজার টাকা বরাদ্দ পেয়েছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এছাড়া বরাদ্দ অনুমোদন পাওয়া অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে রয়েছে- আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ৫০৪ কোটি ৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা, পরিকল্পনা বিভাগ দুই হাজার ২৪৭ কোটি ৮৪ লাখ ৬ হাজার টাকা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ১১২ কোটি ৫ লখ ১১ হাজার টাকা, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ১১৩ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার টাকা, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এক হাজার ৮৭৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার টাকা, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় ২৭৬ কোটি ৮৫ লাখ ৪৫ হাজার টাকা, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এক হাজার ৭০৭ কোটি ৬২ লাখ ৯৭ হাজার টাকা, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় ৩৫২ কোটি ৭৭ লাখ ৪৯ হাজার টাকা, শিল্প মন্ত্রণালয়ে ৭০১ কোটি ৩২ লাখ ৪০ হাজার টাকা, জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ ৩২ কোটি ৪৬ লাখ ৪ হাজার টাকা, খাদ্য মন্ত্রণালয়ে দুই হাজার ৮৮৬ কোটি ৬৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় ৫৩৫ কোটি ৮ লাখ ৩৯ হাজার টাকা, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ ৫৫১ কোটি ৬১ লাখ ৯১ হাজার টাকা, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ৬২ কোটি ৮৬ লাখ ২৮ হাজার টাকা, বিদ্যুৎ বিভাগ এক হাজার ১১৩ কোটি ৪০ লাখ ৭৮ হাজার টাকা এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এক হাজার ৭৭ কোটি ৮ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

সাংবিধানিক নিয়ম অনুসারে যেসব মন্ত্রণালয় বা বিভাগ বাজেটের বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় করতে পারেনি তাদের হ্রাসকৃত বরাদ্দের জন্য সংসদের অনুমতির কোন প্রয়োজন হয় না। কিন্তু যেসব মন্ত্রণালয় বা বিভাগ অতিরিক্ত ব্যয় করেছে কেবলমাত্র তাদের বরাদ্দই সংসদের অনুমতির প্রয়োজন হয়। এরই প্রেক্ষিত্রে সংসদে এই সম্পুরক বাজেট পাস হয়। সম্পুরক বাজেটের ওপর মোট ৫৪টি মঞ্জুরি দাবির বিপরীতে ১৬৩টি ছাঁটাই প্রস্তাব আনা হয়।

ছাঁটাই প্রস্তাবের উপরু ১০ জন সংসদ সদস্য নোটিশ জমা দিলেও আলোচনায় অংশ নেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমাম, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, রওশন আরা মান্নান, কাজী ফিরোজ রশীদ ও ডা. রুস্তম আলী ফরাজী, গণফোরোমের মোকাব্বির খান এবং স্বতন্ত্র সদস্য রেজাউল করিম বাবলু। তারা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সমালোচনার পাশাপাশি সম্পুরক বাজেট বরাদ্দ না দেওয়ার দাবি জানান।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x