মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০২ অপরাহ্ন

রূপপুরে পৌঁছাল ইউরেনিয়ামের দ্বিতীয় চালান

অর্থনীতি ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৬ অক্টোবর, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

পাবনা প্রতিনিধি

প্রথম ইউনিটের ফ্রেশ নিউক্লিয়ার ফুয়েল বা ইউরেনিয়ামের প্রথম চালান আনুষ্ঠানিক হস্তান্তর করা হয় গতকাল বৃহস্পতিবার। এর একদিন পর আজ পাবনার রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে পৌঁছাল ইউরেনিয়ামের দ্বিতীয় চালান।

পাকশী হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশীষ কুমার স্যানাল এ তথ্য নিশ্চিত করে কালের কণ্ঠকে জানান, ‘কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে শুক্রবার (৬ অক্টোবর) সকাল ১০ টা ১০ মিনিটে নাটোর-কুষ্টিয়া-পাবনা মহাসড়ক দিয়ে ইউরেনিয়াম বহনকারী গাড়িগুলো পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে প্রবেশ করে।’

ইউরেনিয়ামের দ্বিতীয় চালানের গাড়ি বহর ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়ে নাটোরের বনপাড়া ও পাবনার ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া হয়ে রূপপুর প্রকল্প এলাকায় পৌঁছালে কর্মরত বাংলাদেশি ও রাশিয়ান কর্মীরা গাড়িগুলোকে স্বাগত জানান।

রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) দুপুরের দিকে রাশিয়া থেকে দ্বিতীয় চালানের ইউরেনিয়াম বিশেষ বিমানে ঢাকায় পৌঁছায়।

প্রথম চালানের মতোই সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিয়ে আমদানিকৃত পারমাণবিক জ্বালানি সড়ক পথে রূপপুরে নেওয়া হয়। পর্যায়ক্রমে আরো পাঁচটি চালান দেশে আসবে। প্রাথমিক পর্যায়ে মোট সাতটি চালানে আসা জ্বালানি দিয়ে নিরবচ্ছিন্নভাবে এক বছর ২৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন দু’টি ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে।অপরদিকে, প্রথম চালান আসার পর রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রটি এরই মধ্যে পারমাণবিক স্থাপনায় উন্নীত হয়েছে।

আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতিস্বরূপ বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের কাছে জ্বালানি সনদ হস্তান্তর করেছে রাশিয়া। 

ড. শৌকত আকবর বলেন, রূপপুর এখন আর প্রকল্প নয়। এটা কিন্তু এখন একটি পারমাণবিক স্থাপনা। বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে রাশিয়ার পক্ষ হতে বাংলাদেশ সরকারের কাছে পারমাণবিক জ্বালানি সনদ আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর হয়েছে। প্রথম ইউনিটের নির্মাণ কাজে সব ধরনের যন্ত্রপাতি বসানো শেষ হয়েছে।

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x