সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন

রাজনৈতিক বিদেশ নির্ভরতা অভ্যন্তরীণ হস্তক্ষেপের সুযোগ করে দেয়

ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২৩

নিউজটি শেয়ার করুন

দেশের অপ্রতিরোধ্য উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে ও আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে প্রতিহত করতে দেশে অচলাবস্থা সৃষ্টির জন্য পূর্ব থেকেই সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা ছিল জনসমর্থনহীন ও জনবিচ্ছিন্ন সংগঠন বিএনপি-জামায়াত জোটটির। তারই অংশ হিসেবে এই জন্নবিছিন্ন গোষ্ঠীটি দেশের অভ্যন্তরে জ্বালাও-পোড়াও করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সৃষ্টির জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছে। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনের নামে সারা দেশে আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছে এই জোটটি। দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন কর্মসূচীকে জনসম্পৃক্ত করে তুলতে না পারা এবং আন্দোলনের জন্য নতুন ইস্যু সৃষ্টির ব্যর্থতায় সহিংসতার পথ বেছে নিয়েছে জোটটি।সরকার পতনের এক দফা দাবিতে গত ২৮ অক্টোবর রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ‘মহাসমাবেশের’ ডাক দেয় বিএনপি। একই সাথে একই দিনে সমাবেশ করে জামায়াত। সেদিন সকাল থেকে সমাবেশের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জোটটির নেতাকর্মীরা সহিংস হয়ে উঠতে থাকে। একপর্যায়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তারা। পিটিয়ে হত্যা করে পুলিশের এক সদস্যকে।রাজধানীর কাকরাইলে বাসে আগুন, সাংবাদিকদের ওপর হামলা, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সসহ অন্তত ৭টি গাড়িতে আগুন দেয় দলটির নেতাকর্মীরা। এমন কর্মকাণ্ড নির্বাচন এলেই সহিংসতা ও আগুনসন্ত্রাসে অভ্যস্ত বিএনপি-জামায়াতকে তাদের স্বরূপে ফেরাই ।তারাযে জনগণের ওপর নির্ভরশীল নয়, জনগণের রায়ের ওপর শ্রদ্ধাশীল নয় এবং তারা যে ক্ষমতার সোনার হরিণের জন্য হিংস্র হয়ে উঠতে পারে তার প্রমাণ পাওয়া যায় এইসব কর্মকাণ্ডে।

বিএনপির সমাবেশ মানেই জ্বালাও-পোড়াও, তাদের আন্দোলন মানেই আগুন সন্ত্রাস এবং তাদের ঘোষিত হরতাল মানেই এদেশের মানুষের ভোগান্তি, জান-মালের ক্ষতি। জ্বালাও-পোড়াও, সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ যাদের কর্মকাণ্ড তারা কোনদিন সুষ্ঠু ধারার রাজনীতি করতে পারে না সেটাই আবারপ্রমাণ করলো তারা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে করোনা মহামারী ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কা সামলে দেশে একটি সুন্দর সময় যখন চলছে, মানুষের জীবন যাত্রা যখন স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে, ঠিক তখন আবার বিএনপি জামায়াত জোট আগুন সন্ত্রাসের খেলায় মেতে উঠেছে।সাম্প্রতিক দিনগুলোতে তারা এবারও লাগাতর অবরোধ-ধর্মঘট শুরু করেছে সাথে শুরু হয়েছে তাদের সহিংসতা ও আগুন সন্ত্রাস।বিনপির শীর্ষ নেতা সাজাপ্রাপ্ত আসামী তারেক রহমান দেশের মাটিতে না ফিরে লন্ডনে বশে ভিডিও বার্তায় হারতাল অবরধের ডাক দিয়ে সহিংসতা উস্কে দিচ্ছে। ফলে মানুষের দুর্দশা ও জীবন ঝুঁকি বাড়ছে।এছাড়াও দেশের অর্থনীতির চ্যালেঞ্জিং সময়ে ঘোষিত হরতালের কারনে  হাজার হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে বলে মত অর্থনীতিবিদদের।একটা দল কতটা দেউলিয়া হলে জঙ্গিদের মত করে ভিডিও বার্তা দিয়ে কর্মসূচী ঘোষণা করতে পারে।

জনবিচ্ছিন্নতা। দেশে-বিদেশে তাদের ভাবমূর্তির দিকেও লক্ষ করেনি তারা। এ দল যে ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ বলে সাব্যস্ত হচ্ছে– রাষ্ট্রক্ষমতায় ফিরে যাওয়ার মোহে সেদিকেও তাকাননি বিএনপি নেতৃত্ব। জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে সন্ত্রাসময় আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ফলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে বিএনপিকে জঙ্গি উত্থানের দায়ে অভিযুক্ত করেছে এবং আরোও করতে পারে, সেটাও তাদের মাথায় কাজ করছেনা।

বিএনপি যে একটি সন্ত্রাসী দল, সেটা যে শুধু প্রতিপক্ষ দল হিসেবে আওয়ামী লীগই বলছে, সেটাই নয়। কানাডার ফেডারেল আদালত বিএনপির একজন নেতার রাজনৈতিক আশ্রয় মামলার রায়ে বলেছে যে, বিএনপি প্রকৃতপক্ষে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। বিএনপি এমন একটি দল যারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য পূরনে সশস্ত্র সংগ্রাম বা সহিংসতার আশ্রয় নেয়। হাতবোমা, পিস্তল ও অস্ত্র ব্যবহার করে নেতৃস্থানীয় এবং জনগণের ওপর হামলা চালায় বিএনপি। এমনকি অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনাও ঘটায় দলটি।

হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়েই বিএনপির জন্ম, তাই তারা গণতান্ত্রিক আন্দোলনে কখনও বিশ্বাস করে না। বিএনপির আন্দোলন মানেই জ্বালাও-পোড়াও ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম করে জনগণের মধ্যে ভীতি সঞ্চার করে তাদেরকে জিম্মি করে রাখা। এ জন্যই তারা জনগণ থেকে অনেক দূরে চলে গেছে।

বাংলাদেশের নির্বাচনব্যবস্থা, অভ্যন্তরীণ রাজনীতি কেমন হবে, সেটি আমাদের দেশের জনগণেরই ঠিক করার কথা। বিএনপির বিদেশ নির্ভরতা বিদেশীদের আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কথা বলার সুযোগ করে দেয়। মেরুদণ্ড সোজা না হলে এমনই হয়।বিএনপি বিশ্বাস করে বন্দুকের শক্তি, ষড়যন্ত্র আর বিদেশিদের ওপর ভর করে ক্ষমতায় যাওয়া যায় । স্বাধীন ও সার্বভৌম একটি দেশে বিএনপি জামায়াত গোষ্ঠীর বিদেশিদের কাছে নিজেদের অস্তিত বিলিন করে ক্ষমতাই বসার জন্য দেশের বিরুদ্ধে কুৎসা রটানো খুবই দুংখজনক ও দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র বলেই প্রমাণ হয়।

বাংলাদেশকে ঘিরে জিওপলিটিক্সেরযে গুরুত্ব, তা নতুন কিছু নয়। বৈশ্বিক পরিস্থিতির পরিবর্তন হলেও ভূ-রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে আমাদের দেশের গুরুত্ব কখনোই কমেনি। এখন ভারত মহাসাগরীয় কৌশলের প্রেক্ষাপটে এবং বাংলাদেশের অবস্থানগত কারণে আমাদের নিয়ে পশ্চিমাদের মনোযোগ আগের থেকে বেড়েছে।উল্লেখ্য, বাংলাদেশের রাজনীতিতে বৈদেশিক হস্তক্ষেপ অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেপরোয়া ও দুরভিসন্ধিমূলক।এছাড়াও বিএনপি লবিস্ট নিয়োগ করেছে যুক্তরাষ্ট্রে যেন তারা বাংলাদেশে কোনো সহায়তা না দেয়। বিএনপি জামায়াত দেশের স্বার্থ বিরোধী অপপ্রচার চালানোর জন্য এসব লবিস্ট  নিয়োগ দিয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের গভীর সম্পর্ক। তারা এখানে অনেক বিনিয়োগ করেছে। এতে আমাদের উন্নয়ন হয়েছে। তবে এই বিনিয়োগ যেন না করে, সেজন্য লবিং হয়েছে। যারা এসব করেছে, তারা বাংলাদেশের মানুষের মঙ্গল চায় না’।বিএনপি জামায়াত জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে না। তারা মনে করে দূতাবাসে দূতাবাসে ঘুরে বেড়ালে বিদেশিরা তাদের  ক্ষমতায় বসাবে। কিন্তু এদেশের ক্ষমতায় বসানোর মালিক হচ্ছে জনগণ।

বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও নির্বাচন নিয়ে  যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশ্ব  তাদের  মতামত জানাচ্ছে।সম্প্রতি একটি দেশের রাষ্ট্রদূতের আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে হস্তক্ষেপের ব্যাপারটি খুবই অনভিপ্রেত।কূটনীতিকদের অবশ্যই জানা উচিত তাদের আচরণ ১৯৬১ সালে প্রণীত ভিয়েনা কনভেনশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। তারা কী করতে পারে এবং কী পারে না, তাদের অধিকার কতটুকু তা বিস্তারিতভাবে সেখানে বলা আছে। কোনো বিদেশি শক্তির অযাচিত, অনভিপ্রেত, শিষ্টাচারবহির্ভূত হস্তক্ষেপ দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে কখনো সুসংহত করতে পারে না; বরং তা দেশের অসম্মানের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একটা দেশ যখনই উন্নতি-অগ্রগতির মধ্যে থাকবে, গুরুত্বপূর্ণ হতে থাকবে, সে দেশের চ্যালেঞ্জও বাড়তে থাকবে। বঙ্গবন্ধুর রক্ত, রাজনীতি ও আদর্শের উত্তরাধিকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা মাথা নোয়াবার মানুষ নন।বাস্তবতার নিরিখে তিনি দেশের সেসব চ্যালেঞ্জগুলো ভালভাবেই মোকাবিলা করছেন এবং দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় তিনি বদ্ধপরিকর।শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলছে। তিনি তাঁর মেধা, প্রজ্ঞা, দূরদর্শিতা ও দেশপ্রেম দিয়ে সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলেই বাংলাদেশ আজ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত হয়েছে। এই উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে হলে দেশের জনগনকে আগামীতেও জননেত্রী শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আনতে হবে।

লেখকঃ প্রফেসর ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর,  ট্রেজারার, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

এ জাতীয় আরো খবর..

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আজকের অর্থনীতি ২০১৯।

কারিগরি সহযোগিতায়:
x